সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
আবেগের খেলা বিবেকের কাছে পরাজিত

আবেগের খেলা বিবেকের কাছে পরাজিত

আবেগ বিবেক
আবেগ বিবেক

কওমী মাদরাসা নিঃসন্দেহে সুনাগরিক তৈরির কারখানা। কওমী মাদরাসায় যারা পড়ে তাদের মধ্যে যে দেশপ্রেম আছে তা অন্য কোন ধারার শিক্ষা প্রতিষ্টান কর্তৃক শিক্ষিত হওয়া জনগোষ্ঠীর মাঝে নেই । তারা কোরআন হাদীস পড়ে জানতে পারে দেশ প্রেম ঈমানের অঙ্গ। তাই প্রতিটি কওমী মাদরাসার ছাত্র শিক্ষকরা দেশকে ঈমানের তাগিদেই ভালবাসে।

শত্রুর হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে বদ্ধপরিকর। স্কুল কলেজ, ইউনির্ভাসিটির ছাত্ররা দেশ প্রেম শিখে প্রতীকী অর্থে। জাতীয় সংগীত পড়া, পতাকা কে স্যালুট দেওয়া, জাতীয় দিবস গুলোকে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করাকে দেশপ্রেম বলে মনে করে তারা। তাদের দেশ প্রেম শিখানো হয় সেভাবেই।

স্বাধীনতা পরবর্তী সুশীল সমাজ নামক প্রতীকী দেশপ্রেমিরা এই সংজ্ঞাকে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দিয়েছে। যার ফলশ্রুতিতে যারা জাতীয় দিবস গুলো গান নাচের মাধ্যমে পালন করেনা তারা দেশদ্রোহি ও রাজাকার নামে পরিচিত হয়। সহজ সরল বাঙ্গালিদের মাঝে সত্যিকারের দেশপ্রেম কে আড়াল করে প্রতীকী দেশপ্রেমের রেওয়াজ চালু করেন কিন্তু এই কওমী মাদরাসারা ছাত্ররা অনেক সময় ক্ষমতার সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

কওমী মাদরাসার ছাত্ররা শিক্ষকের প্রতি যথেস্ট আনুগত্যশীল। যার ফলে শিক্ষকগণ যা বলে তা চোখবুজে মেনে নেয়। যার কারণে কওমী মাদরাসারা ছাত্ররা অনেক সময় শিক্ষকদের আনুগত্য করতে গিয়ে ব্যবহৃত হয় তাদের ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হিসেবে। তাদের আবেগকে কখনো বিএনপির পক্ষে কখনো আওয়ামী লীগের পক্ষে ব্যবহার করে।

হেফাজতে ইসলামের আন্দোলন সংগ্রাম যদিও নাস্তিকদের বিরুদ্ধে কিন্তু কিছু কওমী মাদরাসারা ভিত্তিক ইসলামী দল হেফাজতের আবেগকে সরাসরি বিএনপির ক্ষমতার সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার করেছিল। কওমী মাদরাসারা ইতিহাস গৌরবোজ্জ্বল ইতিহিস হওয়া স্বর্থেও কিছু ক্ষমতালিপ্সু রাজনীতিবিদ তাদের আবেগকে ব্যবহার করে ক্ষমতার সিঁড়ি হিসেবে। যার ফলে কওমী মাদরাসার ছাত্ররা ভুলে যেতে বসেছে কওমী মাদরাসার মাদার দেওবন্দ মাদরাসারা প্রতিষ্টার আসল লক্ষ্য উদ্দেশ্য।

যারাই কওমী মাদরাসার ছাত্রদের আবেগ হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের সময় বিএনপির পক্ষে ব্যবহার করেছিল ঠিক তারাই কওমী মাদরাসার ছাত্রদের আবেগকে আওয়ামী লীগের পক্ষে ব্যবহার করেছে। কওমী মাদরাসার মোহতামিম, সিনিয়র উস্তাদ হয়েও সরাসরি বিএনপি, আওয়ামী, লীগ, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের পক্ষে কাজ করার দরুণ কওমী মাদরাসার ছাত্রদের মাঝে বাড়ছে বিভক্তি। এক আকাবির বিএনপির পক্ষে, অন্য আকাবির আওয়ামী লীগের পক্ষে রাজনীতি করার কারণে কওমী মাদরাসার ছাত্ররা হচ্ছে বিভক্ত। গড়ে উঠছে একটি বেয়াদব ও উগ্রবাদী প্রজন্ম যারা তাদের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস ঐতিহ্য সম্পর্কে সম্পূর্ণ বেখবর।

যারা বস্তুবাদী রাজনীতির সাথে জড়িত তাদের চেয়ে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে এসময়ের কওমী মাদরাসার ছাত্ররা যারা রাজনীতির সাথে জড়িত। রাজনৈতিক দলের পক্ষে সাফাই গাইতে গিয়ে বাড়ছে দ্বন্ধ। এই দ্বন্ধ রূপ নেয় ব্যক্তিগত চরিত্র হননের।

যারা কওমী মাদরাসারা ছাত্রদের আবেগ নিয়ে খেলা করে তারাই হয়ে যায় কওমী মাদরাসার হর্তা কর্তা।রাতারাতি বনে যায় তাদের আকাবির। যার ফলশ্রুতিতে গড়ে উঠছে একটি উগ্রবাদী প্রজন্ম। আকাবির পূজা বন্ধ না হলে বাড়বে বিভক্তি।কওমী মাদরাসার ছাত্রদের নিয়ে যে আবেগের খেলা চলছে তা বন্ধ করা হোক।

২০১৩ সালে আমার দেশ পত্রিকায় যেভাবে নাস্তুিকদের নিয়ে লেখালেখি করেছিল তাতেই আমরা তাদের প্রসংশায় পঞ্চমুখ হয়ে পড়ি। বিএনপি জামায়াত নাস্তিকদের বিরুদ্ধে মাঠে নামেনি। তারা মাঠে নেমেছিল কওমী মাদরাসার ছাত্রদের আবেগ কে ব্যবহার করে সরকারের পতন ঘটিয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার কিন্তু হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনে সংগ্রামে যারা এসেছিল তারা এসেছিল ঈমানের তাগিদে।

মুহাম্মদ (সা) এর প্রেম ও ভালবাসার তাগিদে। সেদিন যারা মারা গেল তারা নিঃসন্দে শহীদ। কওমী মাদরাসারা ছাত্রদের আবেগ নিয়ে যারা খেলা করেছিল শাপলা চত্বরে তাদের কেউ মারা যায়নি, আহত হয়নি, হয়নি গ্রেপ্তারও কিন্তু গ্রেপ্তার হয়েছে নিহর ও মাজলুম জননেতা আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।

সেদিন আবেগের খেলা পরবর্তীতে বিবেকের কাজে পরাজিত হয়েছে।

লেখকঃ নুর আহমদ সিদ্দিকী

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840