সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
ইসলামী আন্দোলনের কর্মীরা দলান্ধ নয়: নুর আহমদ সিদ্দিকী

ইসলামী আন্দোলনের কর্মীরা দলান্ধ নয়: নুর আহমদ সিদ্দিকী

চরমোনাই পীর/ ইশা ছাত্র আন্দোলন
চরমোনাই পীর/ ইশা ছাত্র আন্দোলন

যারা ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর সাথে সম্পৃক্ত তাদের বিরুদ্ধে ঘোরতর অভিযোগ হল তারা আমিরের অন্ধভক্ত। সবাই এই বিষয়ে একমত। এই অভিযোগটি করে তারা আমাদের ভাই  দূরের কেউ নয়। বিশেষ করে কওমী ঘরোয়ানার ইসলামী দলের নেতা কর্মীরা এই অভিযোগ বেশি করে। এরাই বেশি এই বিষয়টার প্রচার প্রচারণা চালায়।


আমি সম্মানের সহিত বলব, ভাই আপনারা আমাদের ভুল বুঝছেন। আদৌ আমরা অন্ধভক্ত নই বরং আমিরের অনুগত্যশীল। আপনারা অনুমানভিত্তিক এবং অসতর্কতা বশত হয়তো এমন বলেন। প্রকৃত চিত্র চোখ দিয়ে দেখেন কিন্তু মন দিয়ে হয়তো উপলব্ধি করেন না। আপনাদের আরেকটু ভাল করে বিষয়টা ভাবা উচিত। অনুধাবন করা উচিত।

গত ৩০ জুলাই আমাদের প্রিয় নেতার ছাতাতলে তার ডাকে ভারতীয় দূতাবাস অভিমুখে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের গণমিছিলে পুলিশ বাধা দেয়। এমন কি ২০০ গজ না যেতেই পুলিশ বাধা দিলে স্মরণকালের বিশাল গণমিছিলে আসা নেতা কর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে শ্লোগান দিতে থাকে। ভারতের দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধান। পুলিশকে উপেক্ষা করে তারা সামনে যেতে ইচ্ছা পোষণ করেন।

মুহুর্তেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে সারা দেশে। হাজার হাজার মানুষের ঢল যে মিছিলে। তারা চাইলে কিইনা করতে পারেন। ভয় পেয়ে যায় প্রশাসন। কিন্তু আমরা দেশের মানুষ। দেশের নাগরিক। দেশের আইন কানুনকেও সম্মান করতে হয়। প্রশাসনকে শত্রু ভেবে নয় বন্ধুত্ব করে নিতে হয়।

এক প্রকার চোখে চোখ রেখে দালাল বলার মত। নেতা কর্মীরা তীব্রভাবে ক্ষিপ্ত হলে যুগ্নমহাসচিব গাজী আতাউর রহমান সবাইকে শান্ত হতে বলে। মাইকে যখন বলা হল পীর সাহেব হুজুরের নির্দেশ আপনারা শান্ত হোন। সাথে সাথে এত বিশাল জনসমুদ্রে পিনপতন নিরবতা বিরাজ করে। এটাকে অন্ধভক্ত বলবেন নাকি আনুগত্য সেই প্রশ্ন রইল?

পীর সাহেব চরমোনাই প্রত্যেক প্রোগামে বলে, আমি যতদিন হকের উপর অটল আছি ততদিন মানবেন আর যখন দেখবেন আমার কাছ থেকে গোমরাহী প্রকাশ পাচ্ছে সাথে সাথে আমার ভুল ধরিয়ে দিবেন। ভুল ধরিয়ে দেওয়ার পর যদি আমি সংশোধন না হয় তাহলে আমাকে ছেড়ে চলে যাওয়া আপনাদের জন্য ওয়াজিব হবে।

আমার জীবনে এমন কথা কোন আলেম বা পীরের মুখ থেকে আদৌ শুনিনি। কোন ইসলামী দলের নেতা এমন রাজনৈতিক দর্শন জাতির কাছে দিতে পারেনি যা ইসলামী আন্দোলনের আমির পীর সাহেব চরমোনাই দিয়েছে। ইসলামী আন্দোলনের টপ টু বাটম সবাই এই দর্শনে বিশ্বাসি।

আমি পীর সাহেব চরমোনাইর আদর্শ ও নৈততিকতার জন্য মানি এবং তাঁর দল করি।আগামিকাল যদি শুনি তিনি আদর্শচ্যুত হয়েছেন তাহলে এতদিন তাঁর পক্ষে যা লিখেছি এর চেয়ে শতগুন তাঁর বিরুদ্ধে লিখব। নীতি আদর্শ বা দর্শন কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সকল নেতা কর্মী হৃদয়ে লালন করে।

ইসলামী আন্দোলনের প্রত্যেকটি প্রোগামে লোকে লোকারণ্য হওয়ার পেছনে রয়েছে এতাত বা আনুগত্য। যেদিন চরমোনাইর কোন প্রোগ্রাম থাকবে সেদিন চাকরি থেকে ছুটি নিয়ে সকল নেতা কর্মী চলে আসে। ছুটি না দিলে চাকরি ছেড়ে দিয়ে চলে আসে। এমন উদাহরণ বা প্রমাণ হাজারো দিতে পারব। চরমোনাইর মাহফিলে যাওয়ার জন্য ছুটি চেয়েছে কিন্তু কতৃপক্ষ দেয়নি ঠিক সেই মুহুর্তে চাকরিকে Goodbye বলে মাহফিলে চলে গেছে শত শত ইমাম, মুয়াজ্জিন, ডাক্তার, গার্মেন্টস কর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।

এটাকে অন্ধভক্ত বলেনা আমিরের এতাত বা অনুগত্য বলে। তবুও যদি সমালোচনা করেন অন্ধভক্ত বলে তাহলে কিছুর করার নেই। হয়তো আজীবন সমালোচনা করার জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন যাতে আপনার গিবতের মাধ্যমে আমরা পবিত্র হয়ে যায়।

চরমোনাই ওয়ালারা অন্ধভক্ত নাকি আনুগত্যশীল? ইসলামী আণ্দোলনের কর্মীরা দলান্ধ কি না। এই সব বিষয়ে রয়েছে নানা শ্রেণির মানুষের নানা মত, বিভক্তি ও মতবিরোধ। ইসলামী আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে নূর আহমদ সিদ্দিকী বিশ্লেষণ করেছেন বাস্তবতার নিরিখে।

আপনিও বিষয়টা সম্পর্কে পড়লে সম্পষ্ট ধারণা প্রাপ্ত হতে পারেন। অনেক সুন্দর ভাবে পুরো বিষয়টা কে তিনি ব্যাখ্যা করেছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840