সংবাদ শিরোনাম:
দ্বিতীয়বারের মতো ঢাকার সেরা অফিসার ইনচার্জ ফারুক হোসেন ‘ভোট জালিয়াতি’ তদন্তের নির্দেশ চট্টগ্রামে গলায় ছুরি ধরে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, ধর্ষকদের বাঁচাতে কাউন্সিলরপ্রার্থী বেলালের দৌড়ঝাঁপ নারী নির্যাতন মামলায় বিজয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের বিবাহিত সভাপতি মাহবুব হোসেন কারাগারে দুই নবজাতকের লাশ নিয়ে হাইকোর্টে বাবা কনস্টেবলকে মারধর, শ্রমিকলীগ নেতার স্ত্রী কারাগারে অবক্ষয় থেকে তরুণ সমাজকে রক্ষা করতে চলচ্চিত্রের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে- তথ্যমন্ত্রী পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2020 কর কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২০ ৯ দিনে করোনা জয়ী তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ
এমপি বুবলির দুই বাচ্চাসহ আত্মহত্যার হুমকি

এমপি বুবলির দুই বাচ্চাসহ আত্মহত্যার হুমকি

বুবলি , এমপি
বুবলি , এমপি

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সদ্য অনুষ্ঠিত বিএ পরীক্ষায় প্রক্সির মাধ্যমে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে ধরা পড়েন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাংসদ তামান্না নুসরাত বুবলি। তিনি সংসদে থাকলেও পরীক্ষাগুলো তার পক্ষে দিয়ে দিতো কেউ না কেউ। প্রতিটি পরীক্ষাতেই প্রক্সি দেয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন। যা শিক্ষকদের সচেতনতায় ধরা পরে।

এমন হীন কাজের মাধ্যমে তিনি দলের সুনাম ক্ষুন্ন করেছেন। আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কারের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগ। এছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকেও তাকে ইতিমধ্যে অপসারণ করা হয়েছে।

নরসিংদীর সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ তামান্না নুসরাত বুবলিকে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় তাৎক্ষণিকভাবে তার ছাত্রত্ব বাতিল পূর্বক বহিষ্কার করে।

তিনি তার এমন নীচ ও জঘন্য প্রকৃতির অপরাধ মূলক কাজ করার পর-ও আজোবধি তার দোষ স্বিকার করেননি কিংবা ক্ষমাও চাননি। তিনি এই বিষয়ে কিছু বলতে চান না বলেই এড়িয়ে গেছেন সবসময়। অনেক চেষ্টার পর তিনি বলেছিলেন “আমি এই বিষয়ে কিছুই জানি না। আমার সেক্রেটারি আমাকে সারপ্রাইজ গিফট দিতেই এমনটা করেছিল। আমার এর সাথে কোন যোগাযোগ নেই।”

তিনি সবসময় তার অপরাধ অস্বিকার করে গেলেও সারাদেশের মানুষের কাছে বিষয়টি দিনের আলোর মতোই পরিষ্কার। তাৎক্ষণিকভাবে তার দল তথা বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ কোন বিবৃতি না দিলেও বিষয়টা নিয়ে লজ্জ্বিত হয়েছেন সবাই। যথাসময়ে যতোপযুক্ত ব্যবস্থা নিবে দল এমনটা ধারণা করছিলেন সবাই।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন এমপি বুবলি। যদিও পোস্ট করার কিছুক্ষণ পরপরই তা মুছে ফেলেন। সাংবাদিকরা তার পিছনে লেগেছেন এমনটাই তার বক্তব্যে প্রতীয়মান হয়।

বুবলি তার নিজের প্রোফাইলে ফেসবুকে লেখেন, ‘প্রিয় সাংবাদিক ভাইগণ, আমার জানা মতে আমি ব্যাক্তিগতভাবে কারো সাথেই কোনদিন খারাপ আচরণ বা সামাজিকতার যে আন্তরিকতা সেটা কমতি রাখিনি কোনদিন, যখন নরসিংদী ছিলাম মেয়র লোকমান হোসেনের সহধর্মিনী হিসেবে আপনারা ওনার মারা যাবার পর আমার অকালে বিধবা হওয়া লড়াই সংগ্রামী জীবন ছেলে মেয়ে ছোট তাদের নিয়ে একা লড়াই দেখে আফসোস সান্তনা সবই দিতেন, সবাই হায় আফসোস করতো কিন্তু ধারে ভারে কেউ ছিলো না আমার। যুদ্ধ জয় কি জিনিস জানতাম না তবে ছুটতে হবে উপায় নাই বাজার করা থেকে শুরু করে ছেলে মেয়ে নিয়ে কতটা লড়েছি এখনো তারা ছোট নাই বা বললাম, কেন যেনো এখন সব চাইলেই লিখতে পারি না কারণ একটা সংকোচের জায়গাতে অবস্থান করছি।

আমি সংসদ সদস্য হবার পর আলহামদুলিল্লাহ্ স্যালারি দিয়ে ছেলে মেয়েকে ভালো স্কুলে পড়াই যাবতীয় নিজ খরচ বহন করি, সামান্য সঞ্চয় করছি এখান থেকেই যাতে করে ৫ বছর পর এটা আমাদের কাজে লাগে, আপনাদের অনেক লেখা আমার চোখে পড়ে যারা আফসোস করতেন আজ তারা টেনেহিঁচড়ে সংসদ থেকে নামাতে মরিয়া হয়ে লিখছেন। ব্যক্তিগত জীবনে চাওয়া পাওয়ার হিসেব রাখিনি নরসিংদীবাসিকে ভালোবেসেছি কিছু অপশক্তি পেছনে লেগেছে, কতকিছু ঘটনা দেশে ঘটে এত লেখালেখি কেউ করে না আপনারা এটা নিয়ে এমন ভাবে লিখছেন যেনো আমার জন্য ৫০ জীবন শেষ হয়ে গেছে লুটপাট হয়েছে সর্বনাশ হয়েছে অনেকের।

আমার যদি কিছু হয় দুই বাচ্চা নিয়ে সুইসাইড করি খুশি হবেন তো আপনারা? ঠিকাছে আপনাদের খুশি আমার খুশি, ভালো থাকুক আমার সাংবাদিক ভাইগণেরা, আল্লাহ্ ভালো রাখুক আপনাদের। আমার এ জীবনে পাওয়ার চাইতে মনের দুঃখে মরেছি অনেকবার, বারবার মরার চাইতে একবারে মরে গেলেই ভালো মনে করি।’

তার এমন ফেসবুক পোষ্টের কারনে তার প্রতি মানুষের ঠাট্টা বিদ্রুপ আর-ও বেড়ে গেছে। কেউ কেউ মন্তব্য করছেন “ইমোশনালি ব্ল্যাক মেইল করার জন্যই তার ফেসবুকের মাধ্যমে এমন হীন কৌশল।”

কেউ কেউ বলছেন “অযোগ্য ব্যক্তিকে মাত্রাতিরিক্ত সম্মান দেখালে এমন-ই হওয়া স্বাভাবিক। কোন সাংসদের বক্তব্য এমন হওয়া কতোটা উচিত? তার জ্ঞানের পরিধি নিয়ে প্রশ্ন তুলতেই হয়।”

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840