সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
“ও কেন আগে নামেনি”: প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা

“ও কেন আগে নামেনি”: প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা

আফিফ ইসলাম
বাংলাদেশ/ক্রিকেট/শেখ হাসিনা/মাদার অব হিউম্যানিটি/ আফিফ ইসলাম/ট্রাই নেশন সিরিজ

ম্যাচ জয়ের নায়ক আফিফ হোসেন। জন্ম খুলনাতে। জন্ম গ্রহণ করেন ২২ সেপ্টেম্বর ১৯৯৯ সালে। বর্তমানে ১৯ বছরের তরুণ। এই অলরাউন্ডার বাম হাতে ব্যাট চালালেও বল করেন ডান হাতে। যেমনি তিনি মারকুটে ব্যাটসম্যান ঠিক তেমনি ডান হাতি অফ ব্রেক বোলার। আন্ডার নাইনটিনে রয়েছে তার দাপুটে পার্ফমেন্স।

ছোট্ট এই খেলোয়ারের ক্যারিয়ার-এ খেলেছেন রাজশাহী কিংস, বাংলাদেশে আন্ডার নাইনটিন এবং আন্ডার টুয়েন্টি থ্রি, খুলনা টাইটানস, বাংলাদেশে জাতীয় দল, বাংলাদেশে এ দল, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড একাদশ, সিলেট সিক্সারস এবং সেন্ট কিটস এবং নেভিস পেট্রিয়টস এর হয়ে।

বাংলাদেশের খেলোয়ারদের আঁতুর ঘর বিকেএসপি অর্থাৎ বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই গড়ে উঠা, বেড়ে উঠা এই আফিফ ইসলাম। এই তরুণ আফিফ রাজশাহী কিংস এর হয়ে ১৭ বছর বয়সে খেলতে নেমে ক্রিস গেইলের ওইকেট সহ তুলে নেন ২১ রান খরচায় ৫ ওইকেট। সবার নজর কাড়ে এই লিকলিকে ছেলেটি। সুযোগ সন্ধানী আফিফ অপেক্ষায় ছিল কখন তিনি দেশকে কিছু দেয়ার সুযোগ পাবেন।

বাংলাদেশ বিশ্বকাপ থেকে হতাশা নিয়ে ফেরার পর চলছিল যেন দুর্ভিক্ষ। এই ক্রিকেটিয় দুর্ভিক্ষে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অসাধারণ একটি ইনিংস খেলে ডুবে যাওয়া বাংলাদেশ দলকে যেন ৮ ম্যাচ পর জয়ের স্বাদ এনে দিলেন আফিফ হোসেন।

আফিফের ক্যারিয়ারের শুরু বলতে প্রথম শ্রেণি ক্রিকেটে তার অভিষেক হয়েছিল ২০১৭ সালের ফেব্রয়ারিতে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটেই বিসিবি তাকে ইলিগাল বোলিং এ্যাটাকিং এর জন্য আটকিয়ে দেয়। যদিও ঐ একই বছর সেপ্টেম্বর মাসেই বোর্ড তাকে লিগ্যাল বোলার হিসেবে ছাড়পত্র দেন। অবশ্য ততদিনে তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিসে ক্যারিবিয়ান লীগ খেলে এসেছেন।

সেই আফিফ যেন গতোকালের পুরো ম্যাচে সেই পুরোনো ক্ষোভই ঝাড়লেন। বিধ্বংসী ব্যাটিং এর পর ম্যান অফ দি ম্যাচ হলেনি কিন্তু তিনি ছিলেন নির্ভার।এক মুহুর্তের জন্যও যেন তিনি হাসার কথা ভুলে গিয়েছিলেন তাই প্রাইজ সিরোমনির হোস্ট শামীম আহমেদ তাকে একটু হাসতে অনুরোধ করলেন-ও বটে।

সাকিব আল হাসান বাংলাদেশের প্রান। বাংলাদেশে যেন খুঁজে পেল আরেক সাকিব আল হাসান কে। জয়জয়কার আফিফ ইসলাম।
গতকাল জিম্বাবুয়ের নিকট একটি লজ্জাজনক হার থেকে ম্যাচটি বাঁচাতে মোসাদ্দেকের অবদান-ও কম নয়। খেলেছেন ধৈর্য্য নিয়ে শেষ পর্যন্ত। আর সাইফ ২ বলে ৩০০ স্ট্রাইক রেটে তুলে নিয়েছেন ৬ রান আর উইনিং শর্ট থেকে ৪ রান।

আফিফ ২০০ স্ট্রাইক রেটে ৮ টি চার ও একটি ৬ এর সাহায্যে করেন ৫২ রান।

ম্যাচ জয়ের পর থেকে আফিফময় হয়ে উঠেছে পুরো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। সাকিব ভাসিয়েছেন প্রশংসার বন্যায়। নির্ভরতার প্রতীক হিসেবে চান আফিফকে সবাই।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী-ও মজা করে বললেন “ও আগে নামেনি কেন?”
মাননীয় প্রধান মন্ত্রী মাদার অফ হিউম্যানিটি শেখ হাসিনার বিষয়ে সবাই অবগত একজন ক্রিকেট ভক্ত হিসেবে। তিনি ক্রিকেট খেলা দেখার জন্য অফিসের কাজ কর্ম কিংবা মিটিং-ও অনেক রাতে করে থাকেন। গতকাল ম্যাচটি দেখার মুহুর্তে তিনি মজা করে আফিফকে উদ্দেশ্যে করে উপস্থিতিদের বলেন “ ও আগে নামেনি কেন?” সবাই তখন হেসে দেয়।
প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের অভিজ্ঞ ও দায়িত্বশীল ব্যাটিং লাইনআপ যখন হুরমুর করে ভেঙ্গে পরছিল। যখন পুরো জাতি আরেকবার হতাশায় ভর করে তাকিয়ে ছিল। টানা নবম পরাজয় ভেবেই নিয়েছিল। ঠিক তখনই পিচে আসেন আফিফ ইসলাম। আর সে এলো, দেখলো, জয় করলো।
প্রথম বলেই চার রান। ২য় বল ডট। তৃতীয় ও চতুর্থ বল টানা দুটি চার। দাপুটে ইনিংস এর ইঙ্গিত তো শান্ত ধীর স্থির ছেলেটি তখনই দিয়ে ফেলেছিল। ৮ টি বাউন্ডারি আর ১ টি ওভার বাউন্ডারিতে সে ২৬ বলে করে ৫২ রান। বাংলাদেশের খেলোয়ারদের টি-টুয়েন্টি স্ট্রাইক রেট খুব একটা ভালো নয়। সেখানে তার এই পার্ফমেন্স আশা জাগাতেই পারে।
নির্ভুল শর্ট সিলেকশন যেন আফিফের থেকে শিখতে হবে সিনিয়রদের। সবার প্রত্যাশা মেটাতে হবে এই আফিফকে। ১০-১৫ বছর দেশ তার থেকে সার্ভিস প্রত্যাশা করতেই পারে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840