সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
কবি জামাল খানের ৪ টি কবিতা

কবি জামাল খানের ৪ টি কবিতা

জামাল খান
জামাল খান/Jamal khan

লিখতে চাইনা আর কবিতা
জামাল খান
———————–
আমি লিখতে চাইনা আর কবিতা-
লিখতে চাইনা আর কবিতা!

অসভ্যতার খঞ্জরে, পিঞ্জরে দাঁগ কাটা
নিঃসৃত জর্জরিত, রক্তাক্ত ভাষায়
সভ্যতা ক্ষয়ের উদরে নির্মমতার কালিতে
বিষাক্ত ছোবলে দূষিত কিছু অক্ষরে
লিখতে চাইনা আর, ছন্দপতনের কবিতা!

সন্তান হারা মা-বাবার অশ্রুমাখা ছন্দে
অন্তঃআত্মা ছুঁয়ে আসা অসহিষ্ণু মাত্রায়
যুগের পীঠে রাক্ষুসে থাবার তালে
জঘন্য মনুষ্যত্বহীন তান্ডবী লয়ে
লিখতে চাইনা আর, লেলিহান কবিতা!

নিরাপদ গর্ভে গুলিবিদ্ধ শিশুর ব্যথায়
রিফাত শরিফ, বিশ্বজিতের শেষ নিঃশ্বাসে
সাগর,রুনির রেখে যাওয়া কলমের আঁচড়ে
তনু, নুসরাত, মিতুর ইজ্জত হারা কাফনে
লিখতে চাইনা আর, শিরোনামহীন কবিতা!

স্বার্থের কবলে যখন ধর্ষিত হয় মানবতা
গণতন্ত্রের কাঁধে উড়ে আসা শকুন
-যখন ঠুকুরে খায় স্বাধীনতা
অবুঝ শিশুর যোনি কাটা ব্লেডের তীক্ষ্ণ ধারে
লিখতে চাইনা আর, কলঙ্কময় কবিতা!

কলেজ ক্যাম্পাসে গোপন টর্চার সেলে
নির্যাতিত গোঙানির অভিশপ্ত ধ্বনিতে
সভ্যতার কোলে উলঙ্গ ইতিহাস রাখতে
আবরারের শরীরে নতুন মানচিত্র দেখে
লিখতে চাইনা আর, অমাবস্যার কবিতা!

ইস্যুর পরে ইস্যু আসা সর্বগ্রাসী ব্যঞ্জনায়
মা, জুস নিয়ে ফিরে না আসা, তুবার পিপাসায়
বাবা নামক সম্পর্কের মিথ্যে প্রভঞ্জনায়
তুহিনের পেটে ঢুকে থাকা ছুরির আঘাতে
লিখতে চাইনা আর, পৈশাচী কবিতা!

ডাস্টবিন কিংবা ডোবায় গোপনে নিক্ষিপ্ত
কোনো নির্লজ্জ ডিম্বাণু আর শুক্রাণুর মিলনে
তৃপ্ততায় চরম পুলকে জন্ম নেওয়া ফসল
নবজাতকের মুষ্টিবদ্ধ দু’হাতে রাখা অভিশাপে
লিখতে চাইনা আর নৃশংস কবিতা!

আমি লিখতে চাইনা আর কবিতা-
লিখতে চাইনা আর কবিতা!
আমি লিখতে চাইনা আর, কবিতা…….!

বাজেট নামের বাঁশ
জামাল খান
—————————
গরীব মেরে বছর বছর
হয়রে বাজেট পাশ,
নতুন বাজেট এলেই যেনো
পাবলিক খায় বাঁশ।

বাজেট মানেই বাংলাদেশে
ফুফিয়ে কাঁদবে জাতি,
সবার কাঁধে লাফিয়ে উঠবে
অনটনের হাতি।

বাজেট নামের ঘানিটা ভাই
দফায় দফায় বাড়ে,
সেই ঘানিটা টানতে টানতে
দাগ যে পড়ে হাড়ে।

কষাঘাতের এই সমাজে
বাজেট মানেই ধাক্কা,
কেমন করে রাখবো সচল
জীবন গাড়ির চাক্কা?

রুখে দাও এমন বাজেট
আমজনতার দল,
নইলে কিন্তু দুই চোখে
নেমে আসবে ঢল।

বাজেট এলেই এই বাজারে
জীবন ছারখার!
অল্প আয়ের মানুষ যারা
তাদের হাহাকার!

কেমন করে জীবন মাঠে
করবো সুখের চাষ,
বাজেট নামের এমন বাঁশ
হলে দেশে পাশ?

গাঁও-গ্রামের মানুষগুলো
জামাল খান
(কাব্যগ্রন্থ-খোঁচা)
———————————
গ্রাম এখন নাই আর গ্রাম
হইয়া গেছে শহর,
সেই শহরে দেখি কেবল
হঠকারিতার বহর।

গ্রামের সেই সহজ সরল
শান্তিটা নাই আজ,
মানুষগুলোর আচরণে
পাই যে ভীষণ লাজ।

ঝগড়া বিবাদ নিত্য চলে
জড়ায় মরণ বানে,
আপনজনকে পর করে দেয়
একটু স্বার্থের টানে।

মানুষগুলোর বিবেক বুদ্ধি
পাইছে ভীষণ লোপ,
মনের মাঝে বোঝাই ওদের
পাহাড় সমান ক্ষোভ।

কারোর চোখে সয়না আজ
কারোর একটু ভালো,
কুন্ডলীতে আটকে গেছে
নাই সভ্যতার আলো।

ডিজিটালের মেকাপ মেখে
সঙ সেজেছে সবাই,
মনুষ্যত্ব ভুলে ওরা
বিবেক করে জবাই।

কে কার পিছে লাগবে আগে
দেয়যে শুধু পাল্লা,
ভুলে যায় উপরেতে
বসে আছেন আল্লাহ।

রাজবধূ
জামাল খান
——————–
রাজবধূ গো! তোর বিরহে
গ্রহণ লেগেছে চাঁদে,
তোর সাজানো প্রাসাদখানা
বোবাকান্নায় কাঁদে।

কেমন করে আছিস ভুলে
রয়েছিস দূরে সরে,
বাম পাঁজরের কোণঘেঁষে
স্মৃতির বৃষ্টি ঝরে।

নিথর রাত্রে চঞ্চলা মন
কামনায় সাঁতার কাটে,
দু’চোখের পাতা এক হতেই
স্বপ্নরা কেবল হাটে।

তোরই পাগল ছোঁয়া পেতে
আকুলতা প্রাণে,
রাজবাগিচা আজো পূর্ণ
রাজবধূ তোর ঘ্রাণে।

স্বর্গটাও ফিকে আমার
যদি না থাকিস তুই,
ইচ্ছে করে মাতাল প্রেমে
তোকেই শুধু ছুঁই…….!

তোরই ধ্যানে রাজমন্দিরে
থাকবো কতো মগ্ন?
যায় কেটে যায় তুই ছাড়া
পরম শুভলগ্ন।

হৃদয়ের রাজকোষে হায়
জমছে প্রেমের মধু,
মাতাল হয়ে আয়রে ছুটে
সোনার রাজবধূ।

কবি জামাল খান। কবি সেজে সাহিত্য ব্যবসায়ী যারা তাদের বিরুদ্ধে বর্তমান সময়ের একজন সাহসী যোদ্ধা। তার লেখা (খোঁচা) মূলত একটি সাড়া জাগানো পর্ব ভিত্তিক কবিতা। ধর্ষিত মানবতা তার শ্রেষ্ঠ কবিতাগুলোর মধ্যে একটি। কবি জামাল খান একজন মিষ্টভাষী ও সৎ ব্যক্তিত্ব। তিনি তার লেখা কবিতাগুলো আবৃত্তি করে বেশ কিছু অনুষ্ঠানে সাড়া জাগিয়েছেন। দর্শকের অনুরোধে একই অনুষ্ঠানে তার একটি কবিতাই দুই বা তার-ও অধিক বার আবৃত্তি করতে হয়েছে। তিনি বীরদর্পে অগ্নি ঝড়া কন্ঠে তার কবিতার ফুল ঝুড়ি নিয়ে সামনে আগাচ্ছেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840