সংবাদ শিরোনাম:
বিডি ক্লিনের প্রধান সমন্বয়কের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর সাবেক সহ সভাপতি মশিউর রহমান শরিফ নরসিংদী মডেল থানার নতুন ওসি বিপ্লব কুমার দত্ত চৌধুরী টাঙ্গাইল পৌর ভবন এখন করোনার হট স্পট সাহেদের ৫০ দিনের রিমান্ড আবেদন শাহিন স্কুলের কর্তৃপক্ষ তালা ঝুলিয়ে পালালেন দলীয় নেতা কর্মীরা মিথ্যার জাহাজ হিসেবে আখ্যায়িত করলেন কেন্দ্রীয় তাঁতী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদককে ক্লিন টাঙ্গাইলের উদ্যোগে চতুর্থবারের মত প্রতিবন্ধীদের মাঝে উপহারসামগ্রী বিতরণ মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে তাঁতী লীগের মন্তাজউদ্দীন ভূঁইয়ার কর্মসূচি ব্যারিষ্টার ছেলের পিতা টাঙ্গাইল পৌর প্যানেল মেয়র সাইফুজ্জামান সোহেল
জীবাণুযুক্ত পানি দিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে!

জীবাণুযুক্ত পানি দিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে!

কিশোরগঞ্জ এর ভৈরব
কিশোরগঞ্জ এর ভৈরব

করোনাভাইরাস এর বিস্তার প্রতিরোধে কিশোরগঞ্জের ভৈরব পৌরসভা কর্তৃপক্ষ তৈরি করছে জীবানুনাশক স্প্রে। তবে সেই স্প্রে তৈরি করতে ব্যবহার হচ্ছে ময়লা-আবর্জনায় ভর্তি নোংরা জীবানুমুক্ত পানি। সহজকথায় বলতে গেলে জীবাণুযুক্ত পানি দিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে!

পৌর শহরের স্টেশন রোড সংলগ্ন পৌর কবরস্থানের পূর্ব পাশের নোংরা ডোবা থেকে জীবাণুনাশক স্প্রে তৈরির জন্য পাইপ এর সাহায্যে পানি সংগ্রহ করতে দেখা গেছে। ক্যামেরাবন্দি হয়েছে পানি উঠাতে গিয়ে শ্রমিকগণ। পৌরসভার ব্যানার বাঁধা স্প্রে মেশিনের পিকাপটি ঐ ডোবার পাশে রেখে দুজনে পাইপের সাহায্যে মেশিন দিয়ে পিকাপটিতে পানি উঠাচ্ছিলেন। এমতাবস্থায় সাংবাদিকদের নজরে আসে বিষয়টি

এ ব্যাপারে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ বলেন, ডোবার পানি দিয়ে জীবাণনাশক স্প্রে তৈরির করার কোনো নির্দেশনা আছে বলে মনে হয় না। এছাড়াও দূষিত পানি দিয়ে জীবাণুনাশক তৈরি হবে না বরং জীবাণু ছড়াবে। সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

করোনাভাইরাস সংক্রামণ প্রতিরোধে জীবাণুনাশক স্প্রে কর্মসূচির ব্যানারে পৌরসভার গাড়িতে বুধবার দুপুর ২টার দিকে ময়লা পানি তুলেছেন দুজন শ্রমিক। জানতে চাইলে তারা বলেন, কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই এই জায়গা থেকে পানি সংগ্রহ করা হচ্ছে। তাদের কাছে নাম জানতে চাইলে তারা নাম বলেন নি। তারা বলেন পৌর সভায় গিয়ে জিগান।

মূলত তারা দাবী করেন তাদের যিনি বস তিনিই বলেছেন। যারা দায়িত্বে আছেন তাদের কথাতেই এখান থেকে পানি উঠাচ্ছেন। তাছাড়া এখানে পানি উঠালেও তাদের যে পরিশ্রম, অন্য কোথা থেকে উঠালেও একই পরিশ্রম।

তাদের কে জিঙ্গাসা করা হলে এখানে পানির সাথে জীবাণু আছে আপনারা জানেন কি না, তারা দাবী করেন তারা লেখা পড়া করেন নি। এখানে জীবাণু আছে কি না তা তাদের জানবার কথা নয়। যদি আমাদের কিচু জিঙ্গাসা করার থাকে তা যেন আমরা সরাসরি পৌরসভায় গিয়ে কথা বলি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির আহবায়ক ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা জানান, “ময়লা আবর্জনার পানি দিয়ে কখনোই জীবাণুনাশক তৈরি হবে না। বিষয়টি নিয়ে পৌর মেয়রের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আসলে কে বা কার নির্দেশনায় এমন কাজটি করা হয়েছে আমরা জানি না। তবে এই বিষয়ে ব্যবস্থা গৃহিত হবে।

ভৈরব পৌরসভার মেয়র এ্যাড. ফখরুল আলম আক্কাছ এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে এ বিষয়ে তিনি অবগত নন বলে জানান। এ ছাড়াও তিনি আরো বলেন জীবাণুনাশক স্প্রে তৈরির জন্য শ্রমিকদেরকে পৌর কবরস্থানের পশ্চিম পাশের বিল থেকে পানি সংগ্রহের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তারা যদি পূর্বপাশের ডোবা থেকে পানি সংগ্রহ করে থাকে তবে সেটি অনুচিত। যাচাই করে এবিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিলের পানি কতোটা নিরাপদ? সে প্রশ্ন করে উত্তর পাওয়া যায়নি। ভৈরবে এমন দায়িত্ব জ্ঞান হীন ভাবে পৌরসভার ব্যনারে চলছে জীবানু রোধের নামে জীবানু যুক্ত করণ প্রকৃয়া।

সারাদেশ যখন মহামারীতে আক্রান্ত। করোনা ভাইরাসের ভয়ে সারা বিশ্ব আতঙ্কিত ঠিক তখনই ভৈরবে পৌরসভার গাড়ি দিয়ে জীবানু ছড়ানো হচ্ছে সারা শহরে। যারা এই বিষয়ের দায়িত্বশীল তারা কতোটা অবগত জীবানু নিয়ে বা তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে সকলের মুখে। সাধারণ জ্ঞান আছে ও সুস্থ্য সবল একজন মানুষের কখনো এমন চিন্তা আসতে পারে না যে জীবাণু যুক্ত পানি দিয়ে জীবাণু বিনাশ করবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840