সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
টাঙ্গাইলের শর্মা হাউজে খাবারের মধ্যে ভাঙ্গা কাঁচ অত:পর ম্যাজিষ্ট্রেট অভিযান

টাঙ্গাইলের শর্মা হাউজে খাবারের মধ্যে ভাঙ্গা কাঁচ অত:পর ম্যাজিষ্ট্রেট অভিযান

টাঙ্গাইলের শর্মা হাউজ
টাঙ্গাইলের শর্মা হাউজ

টাঙ্গাইল এর চেইন ফুড রেস্টুরেন্ট শর্মা হাউজ গত রাত ০৯:১৫টার সময় একটি মর্মান্তিক ঘটনার সম্মুখীন হন বলে দাবী করেন একজন। এডভোকেট মুহাম্মদ ইলিয়াছ হোসেন মনি’র আমন্ত্রণে উপস্থিত হয়েছিলেন একটি অনুষ্ঠানে।
পরিবেশন করা হয় খাবার। তৃতীয় চামচ খাবার তিনি মুখে তুলে চিবানোর সময় একটি অস্বাভাবিক শক্ত কিছু আঁচ করতে পারেন।

মনে মনে ভাবেন হয়ত হাড় বা এমন কিছু। না, হাড় নয়। মুখ থেকে উগরে ফেলে দেখেন একটি কাঁচের টুকরো। একদিক ছুঁচালো। ইঞ্চি দেড়েক লম্বা। তার জিহবার বাম পাশের নীচের দিকটায় অস্বাভাবিকতা অনুভব করেন। নূনতা ভাব। ওয়াসরুমে বেসিনে গিয়ে দেখেন রক্ত!

একটা শরীরে ঝাঁকুনি যেন খায় সে। তিনি বলেন আমি উচ্চ রক্তচাপ আর টাইপ ওয়ান ডায়বেটিক আক্রান্ত। কিছুদিন আগে এনজিওগ্রাম করিয়েছি। যদিও আল্লাহর অসীম কৃপায় অস্বাভাবিক কিছু নেই।

সাথে সাথে তিনি ফোন করেন ৯৯৯। অভিযোগ জানান। এর মধ্যে ৩৩৩ তে অভিযোগ জানান। এর মধ্যে ১৫ মিনিট পর পুলিশ এলো। পুলিশকে অভিযোগ জানানো হল। অভিযোগকারীর নাম ঠিকানাসহ অভিযোগ নিল। সাক্ষীদের সাক্ষ্য নিল।

ভূক্তভোগী ফেসবুকে লিখেন “এর মধ্যে শর্মা কর্তৃপক্ষের যেন টনক পড়তে লাগলো। যেন বিষয়টা স্বাভাবিক একটা মামূলি ব্যাপার! পুলিশ অভিযোগ মৌখিক নিল। নাম ঠিকানা নিল। সাক্ষীদের নাম নিল। শর্মা কর্তৃপক্ষের একজন তো এটা নিয়ে আমাদেরকে জ্ঞান দেয়া শুরু করলো।

সে বলে, ভুল হয়েছে!
আমি বলি, “আপনাদের ভুলে তো আমার জীবন যাবার জোগার। এই কাঁচের টুকরো আমার জিহবা কেটেছি। গলা দিয়ে ঢুকে গেলে আমার তো জীবন নাশ! আমার পরিবারের তো অপূরণীয় ক্ষতি। এটা তো দায়িত্ব অবহেলা।”

আবার ঐ ব্যক্তি বলেন, “অনিচ্ছাকৃত ভুল।”
আমি বলি, “এটা দায়িত্ব অবহেলা এবং জীবন বিপন্নকারী একটি অপরাধ।”

এরপর তর্কে জড়াতে চাচ্ছেন।
তিনি পুলিশের সামনে কর্মচারিদেরকে আমার পায়ে ধরার হুকুম জারি করতে থাকেন।

তিনি বলেন,” ক্ষমা সবার উপরে।”
আমি বলি, “ন্যায়বিচার ক্ষমারও উপরে।” আর সাধারণ জনগণের জীবনবিপন্ন করতে পারে এমন অপরাধে আমি ন্যায়বিচার কামনা না করে কেন ক্ষমা করবো?”

আমি অভিযোগ আমলে নেয়ার জন্য পুলিশ অফিসারকে অনুরোধ জানাতে থাকি। এর মধ্যে ব্লিডিং হচ্ছে। আবার ওয়াস রুমে। সময় ক্ষেপন। প্রহসন। আমি দৃঢ়তার সাথে অভিযোগ জানাই এবং হাসপাতালের উদ্দেশ্যে শর্মা হাউস ত্যাগ করি। একজন আমাকে তো ফিরিয়ে নিতে চাইলেন। একজন ফোনে বললেন, আমি সবাইকে ছেড়ে চলে আসলাম কেন? আইনের প্রতি নিঃস্পৃহ দৃষ্টিভঙ্গী দেখে আমি খানিকটা অবাক!

অটোওয়ালা কলেজ গেটের পরে আর যাবেন না। আমি কলেজ গেট নেমে একজন পুলিশ অফিসারের দেখা পেলাম। তিনি সহায়তা করলেন। আমি নেজারত ডেপুটি কমিশনার এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সাথে কষ্ট করে কথা বলে হাসপাতালে চলে গেলাম কলেজের অফিস সহায়ক মফিজ মন্ডলকে সাথে নিয়ে।

কর্তব্যরত ডাক্তার ঘটনা জানলেন। কাঁচের টুকরো দেখলেন। অবাক হয়ে গেলেন! “আল্লাহর রহমত আছে বলে এই কাঁচ খন্ড আমার গলা দিয়ে ঢুকে নি।
ঢুকলে- মহাবিপদ হতে পারতো। গলা থেকে পায়ু পর্যন্ত অপারেশন করতেও হতে পারতো!” জীবন বিপন্ন!

কথা বন্ধ করলাম। ঔষধ লিখলেন। পুলিশ কেসে রেজিস্ট্রি করলাম।আল্লাহ পরওয়ারদিগার আমার প্রাণ রক্ষা করেছেন।

এভাবেই ১৪ তম বিসিএস এর একজন কর্মকর্তা তার আবেগ প্রকাশ করেন। তিনি ৯৯৯ সার্ভিস টির ভূয়সী প্রশংসা করেন। তারা খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে। আমাকে পুনরায় মেসেজ করেছে এবং কল করে কর্তৃপক্ষ কথা বলেছেন।

ভূক্তা অধিকার ও স্যানিটারি বিভাগ শর্মা হাউজকে ৮০ হাজার টাকা জড়িমানা করেন। এরপর হোটেল সেফাতে অভিযান চালানো হয় সেখানে রান্না ঘরের নিম্ন মানের জন্য দশ হাজার টাকা জড়িমানা করা হয়। শর্মা হাউজের মত বড় চেইন শপের এমন সার্ভিসে উদ্বিগ্ন সাধারণ জনগণ। বিএনপি নেতা রাশেদ টাঙ্গাইল জেলাস্থ শাখার পরিচালক এবং উক্ত শাখার মালিকানা অংশীদার।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840