তিন ছক্কায় পাকিস্তানকে বাড়ি পাঠালেন ওয়েড

তিন ছক্কায় পাকিস্তানকে বাড়ি পাঠালেন ওয়েড

উল্কার গতিতে উত্থান এবং পতন, বড় ম্যাচে হতাশ করল পাকিস্তান
উল্কার গতিতে উত্থান এবং পতন, বড় ম্যাচে হতাশ করল পাকিস্তান

WT20: ফাইনালে Australia

WT20: তিন ছক্কায় পাকিস্তানকে বাড়ি পাঠালেন ওয়েড, ফাইনালে Australia

৬ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটে জিতল অস্ট্রেলিয়া। 

নিজস্ব প্রতিবেদন: ৬, ৬, ৬। ছক্কার হ্যাটট্রিক করে কঠিন ম্যাচে দলকে সহজ জয় হাসিল করালেন ম্যাথু ওয়েড। তাঁর ঝোড়ো ব্যাটে স্বপ্নভঙ্গ হল পাকিস্তানের। টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল অস্ট্রেলিয়া। তাদের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড।             

টসে জিতে বোলিং নেন অ্যারন ফিঞ্চ। তবে অধিনায়কের সিদ্ধান্তের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি অস্ট্রেলীয় বোলাররা। দ্রুত গতিতে রান তুলতে থাকেন দুই পাক ওপেনার মহম্মদ রিজওয়ান ও বাবর আজম। ৭১ রানে পরে পাকিস্তানের প্রথম উইকেট। ৩৪ বলে ৩৯ রান করে আউট হন পাক অধিনায়ক। তিন নম্বরে নামেন ফকর জামান। মাঠে চার-ছক্কার ঝড় তোলেন এই পাক ব্যাটার। ৫২ বলে ৬৭ রান করে আউট হন রিজওয়ান। তখন দলের স্কোর ১৫৮। বাকি কাজটা সারেন জামান। ৩২ বলে ৫৫ রান করে অপরাজিত থাকেন। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট খুঁইয়ে পাকিস্তানের সংগ্রহ ১৭৬। 

১৭৭ রান বেশ কঠিন টার্গেট। শুরুতেই অ্যারন ফিঞ্চকে আউট করে অস্ট্রেলীয় শিবিরে কাঁপুনি ধরিয়ে দেন শাহিন আফ্রিদি। এরপর হাল ধরেন ডেভিড ওয়ার্নার ও মিচেল মার্শ। মার্শকে প্যাভিলিয়নে ফেরান শাদাব খান। ২২ বলে ২৮ রান করেন মার্শ। স্টিভ স্মিথ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল টিকতে পারেননি। শাদাব খানের শিকার হন তাঁরা। বিপজ্জনক হয়ে ওঠার আভাস দিচ্ছিলেন অস্ট্রেলীয় ওপেনার। মাত্র ৩০ বলে ৪৯ রান করে ফেলেছিলেন। তাঁকে ফিরিয়ে জোর ধাক্কা দেন শাদাব। পকেটে পুরলেন ৪ উইকেট। তখন ৯৬ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছে অস্ট্রেলিয়া। চড় চড় করে বাড়ছে রান রেট। কঠিন পরিস্থিতি থেকে ম্যাচ ঘোরালেন মার্কাস স্টয়োনিস ও ম্যাথু ওয়েড। শেষ ১২ বলে বাকি ছিল ২২ রান। কিন্তু ২০তম ওভারে ম্যাচকে গড়াতে দিলেন না ওয়েড। শাহিন আফ্রিদির শেষ তিন বলে ছক্কা মেরে ম্যাচের ভাগ্য ঠিক করে দিলেন। ৬ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটে জিতল অস্ট্রেলিয়া। ১৭ বলে ৪১ রানের ঝড় তুলে অপরাজিত থাকেন ওয়েড। আর এক অপরাজিত ব্যাটার স্টয়োনিসের সংগ্রহ ৩১ বলে ৪১।       

T20 World Cup 2021: টি২০ বিশ্বকাপে এই নিয়ে মাত্র দ্বিতীয় বার ফাইনালে উঠল অস্ট্রেলিয়া

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে চলে গেল অস্ট্রেলিয়া। একদিনের ক্রিকেটের বিশ্বকাপে সাত বার ফাইনালে গেলেও টি-টোয়েন্টিতে এই নিয়ে মাত্র দ্বিতীয় বার ফাইনালে উঠতে পারল তারা।

অস্ট্রেলিয়া এর আগে ২০১০ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছিল। কিন্তু এখনও চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি তারা। সে বার তারা ফাইনালে হারে ইংল্যান্ডের কাছে।

অস্ট্রেলিয়া প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৭ রান তোলে। ডেভিড হাসি ৫৪ বলে ৫৯ রান করেন। ইংল্যান্ডের হয়ে রায়ান সাইডবটম চার ওভারে ২৬ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন। জবাবে ইংল্যান্ড তিন ওভার বাকি থাকতে ৩ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ জিতে নেয়। ক্রেগ ক্রিসওয়েটার ৪৯ বলে ৬৩ রান করেন। কেভিন পিটারসেন ৩১ বলে ৪৭ রান করেন।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া ২০০৭ এবং ২০১২ সালে সেমিফাইনালে গিয়েছিল। ২০০৯ সালে তারা প্রথম রাউন্ডেই ছিটকে যায়। সেটিই অস্ট্রেলিয়ার সবথেকে খারাপ পারফরম্যান্স। ২০১৪ এবং ২০১৬ সালে সুপার ১০ রাউন্ড থেকে ছিটকে যায় অস্ট্রেলিয়া।

T20 World Cup 2021: উল্কার গতিতে উত্থান এবং পতন, বড় ম্যাচে হতাশ করল পাকিস্তান

বিশ্বকাপ শুরুর আগে ট্রফির দাবিদার হিসেবে পাকিস্তানের নাম কখনওই শোনা যাচ্ছিল না। কিন্তু ভারতকে হারাতেই চমকে গেল বিশ্ব। শাহিন শাহ আফ্রিদির বল যে ভাবে উইকেটের সামনে রোহিত শর্মার পা খুঁজে নিয়েছিল, তাতে ব্যাটারদের রাতের ঘুম উড়ে যাওয়া স্বাভাবিক। শুধু রোহিত নন, সেই ম্যাচে আফ্রিদির শিকার ছিলেন লোকেশ রাহুল এবং বিরাট কোহলীও। সাড়া জাগিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করেন বাবররা।

এর পর একের পর এক ম্যাচে খেলতে নামেন এবং জেতেন। বল হাতে শাহিন আফ্রিদি, হাসান আলি, হ্যারিস রউফ, ইমাদ ওয়াসিমরা ত্রাস হয়ে ওঠেন ব্যাটারদের। সব চেয়ে অবাক করে পাকিস্তানের ফিল্ডিং। চরম ফিট দল নিয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে খেলতে নেমেছিলেন বাবররা। সেই সঙ্গে দলে ছিলেন অভিজ্ঞ শোয়েব মালিক, মহম্মদ হাফিজের মতো ক্রিকেটাররা। যাঁরা জানেন কঠিন ম্যাচ কী ভাবে বার করতে হয়। লিগ পর্বে কঠিন প্রতিপক্ষ ছিল শুধু ভারত এবং নিউজিল্যান্ড। সেই দুই দলকেই হেলায় হারিয়ে এগিয়ে চলে বাবরদের অশ্বমেধের ঘোড়া। নামিবিয়া, আফগানিস্তান বা স্কটল্যান্ডের পক্ষে তাঁদের আটকানো সম্ভব ছিল না, তা হলও না।

পাকিস্তান শুধু ম্যাচ জেতেনি, লিগ পর্বে হৃদয় জিতে নিয়েছিল। মরিয়া লড়াই দেখা যাচ্ছিল তাঁদের মধ্যে। বিশ্বকাপে আসার আগে নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড বাবরদের দেশে ম্যাচ খেলতে অস্বীকার করে। সেই অপমানের শোধ নেওয়ার খিদে দেখা যাচ্ছিল ইমরান খানদের দেশের ছেলেদের মধ্যে। ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপ দলের সঙ্গে তুলনা শুরু হয়ে যায় বাবরের দলের।

T20 World Cup 2021: পাকিস্তানের স্বপ্নের দৌড়ে ইতি, শুরুতে ওয়ার্নার, শেষে ওয়েড ঝড়, ফাইনালে অস্ট্রেলিয়া

পর পর তিনটি ছয়। ম্যাথু ওয়েড ঝড়ে উড়ে গেল পাকিস্তান। স্বপ্নের দৌড় শেষ বাবর আজমদের। ৫ উইকেটে পাকিস্তানকে হারিয়ে টি২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেল অস্ট্রেলিয়া। শাহিন শাহ আফ্রিদিকে বাউন্ডারির বাইরে ফেলে দিলেন ওয়েড।

টস জিতে পাকিস্তানকে ব্যাট করতে পাঠান অ্যারন ফিঞ্চ। পাকিস্তানের দুই ওপেনার বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ান শুরুটা ভালই করেছিলেন। হাতে উইকেট রেখে ইনিংস গড়ার কাজ করছিলেন দু’জনে। ৩৪ বলে ৩৯ রান করে বাবর ফিরলেও পাকিস্তানকে এগিয়ে নিয়ে গেলেন রিজওয়ান। ৫২ বলে ৬৭ রান করেন তিনি। তাঁকে সঙ্গত দেন ফখর জামান।

৩২ বলে ৫৫ রান করে অপরাজিত থাকেন ফখর। তবে আসিফ আলি (০) এবং শোয়েব মালিক (১) ব্যর্থ। একটা সময় পাকিস্তান ২০০ রান পার করে দেবে মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু শেষের দিকে রানের গতি আটকে দেন মিচেল স্টার্করা। তবে শেষ ওভারে দু’টি ছয় মেরে পাকিস্তানের স্কোর ১৭৬ রানে পৌঁছে দেন ফখর। স্টার্ক নেন দু’টি উইকেট। একটি করে উইকেট পান প্যাট কামিন্স এবং অ্যাডাম জাম্পা।

অস্ট্রেলিয়ার হয়ে শুরুটা করেছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। আফ্রিদিদের পাল্টা মারের খেলা শুরু করেন তিনি। একের পর এক বল বাউন্ডারির বাইরে পাঠাতে থাকেন ওয়ার্নার। অ্যারন ফিঞ্চকে প্রথম ওভারেই ফিরিয়ে দিয়েছিলেন আফ্রিদি। কিন্তু সেই প্রভাব পড়তেই দিলেন না ৩০ বলে ৪৯ রান করা ওয়ার্নার।

আউট না হয়েও ফিরে যান ওয়ার্নার। বুঝতেই পারেননি যে বল তাঁর ব্যাটে লাগেনি। অস্ট্রেলিয়া হেরে গেলে নিজেকে ক্ষমা করতে পারতেন না তিনি। মিচেল মার্শকে সঙ্গী করে অস্ট্রেলিয়াকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন ওয়ার্নার। তাঁরা ফিরতেই ধাক্কা খায় অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচ ঘুরে যায় পাকিস্তানের দিকে। ১৮ ওভার অবধি পাকিস্তানের দিকেই পাল্লা ভারী ছিল।

শেষ ২ ওভারে দরকার ছিল ২২ রান দরকার ছিল অস্ট্রেলিয়ার। বল করতে আসেন আফ্রিদি। ভয়ঙ্কর বাঁ-হাতি পেসারকে বাউন্ডারির বাইরে ফেলতে থাকেন ওয়েড। পর পর তিনটি ছয় মেরে ম্যাচ অস্ট্রেলিয়াকে ফাইনালে পৌঁছে দেন তিনি। ১৭ বলে ৪১ রান করেন ওয়েড। তাঁর সঙ্গী ছিলেন মার্কাস স্টোইনিস। তিনি ৩১ বলে ৪০ রান করেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840