সংবাদ শিরোনাম:
দ্বিতীয়বারের মতো ঢাকার সেরা অফিসার ইনচার্জ ফারুক হোসেন ‘ভোট জালিয়াতি’ তদন্তের নির্দেশ চট্টগ্রামে গলায় ছুরি ধরে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, ধর্ষকদের বাঁচাতে কাউন্সিলরপ্রার্থী বেলালের দৌড়ঝাঁপ নারী নির্যাতন মামলায় বিজয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের বিবাহিত সভাপতি মাহবুব হোসেন কারাগারে দুই নবজাতকের লাশ নিয়ে হাইকোর্টে বাবা কনস্টেবলকে মারধর, শ্রমিকলীগ নেতার স্ত্রী কারাগারে অবক্ষয় থেকে তরুণ সমাজকে রক্ষা করতে চলচ্চিত্রের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে- তথ্যমন্ত্রী পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2020 কর কমিশনারের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২০ ৯ দিনে করোনা জয়ী তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ
ধানকাটাকে কেন্দ্র করে ভূয়া নিউজ

ধানকাটাকে কেন্দ্র করে ভূয়া নিউজ

ধানকাটা
ধানকাটা

কথায় বলে বাঙ্গালি একটা ভাইরাল জাতি। যে কোন বিষয় পেলেই বিষয়টিকে ভাইরাল করতে যেন মুখিয়ে থাকে। সম্প্রতি কৃষকরা ধানের ন্যায্যা মূল্য না পাওয়ায় ধান ক্ষেতে আগুন ধরিয়ে দেয়ার মতো ঘটনা অহরহ দেখা যাচ্ছে। প্রথমে কেউ রেগে আগুন লাগালেও পরবর্তীতে স্কুল-কলেজ-ভার্সিটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সহযোগীতায় বিনে পয়সায় ধান কেটে নেয়ার ‍সুযোগ পেতেই এমন ঘটনা ঘটায় অনেকে। অনেকের নাম ঢুকেছে হয়তো এমন  সৌভাগ্যবান তালিকায়।

এর পরপরই আসে ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় সভাপতি শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী কর্তৃক ছাত্রলীগের প্রতি দিক নির্দেশনা। ছাত্রলীগের নেতাদের সাথে ফেসবুকের মাধ্যমে দু-একজনকে ধানক্ষেতে নিত্য নতুন বাহারি ঢংয়ের পোশাকে ছবি তোলার পোজ দিতে দেখা গেছে। বর্তমানে পুলিশ সদস্যদের ধান কাটার দৃশ্যের ছবিতেও ছেয়ে গেছে ফেসবুক।

অনাকাঙ্খিত এমন ঘটনায় প্রকৃতপক্ষে সারাদেশে কয়হাজার লোকে কয় শতাংশ জমির ধান কেটেছে তার উত্তর কেউ জানে না। ফটোশ্যুট এবং সেগুলো ফেসবুকে প্রচারের মাধ্যমে নিজেকে পরিচিত করাই যেন ছিল বেশিরভাগ লোকের মূখ্য উদ্দেশ্য।

ফেসবুকের সুবাধে যে কোন মিথ্যা সংবাদকে সত্য করার সুমহান দায়িত্ব কোন কোন কর্তৃপক্ষ স্বেচ্ছায় নিয়েছে। ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের পাশাপাশি বাংলাদেশ পুলিশ এর সদস্যরাও কৃষকদের ধান কাটতে সহযোগিতা করছেন এমন একটি ছবি সম্প্রতি ভাইরাল হয়।

ধানকাটার দৃশ্যগুলোকে নিয়ে বিভিন্নজনের বিভিন্ন মতের আর অন্ত্য নেই। তবে সত্যটাকে মিথ্যা বানানোর জন্য কোন একটা পক্ষ যেন বসে থাকে সবসময় যার ধারাবাহিকতায় ফেসবুকে আনিসুর রহমান (Anisur Rahman) নামের একজন ব্যক্তি পুলিশ সদস্য কর্তৃক পাকা ধান কাটার ছবিটিকে ফটোশপে এডিট করে কাঁচা ধান কাটার দৃশ্য হিসেবে পোষ্ট করেছেন।তার আইডির লিঙ্ক https://www.facebook.com/anisur.rahman.775823 এমনি ভাবে ধান কাটা নিয়ে নানা গুজবে সয়লাব ফেসবুক। এছাড়াও তার টাইমলাইন থেকে দেখা যায় তিনি প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে বিভিন্ন উস্কানিমূলক পোষ্ট এবং গুজব ছড়াচ্ছেন।

তিনি পুলিশ বাহিনীকে কটাক্ষ করে লিখেছেন “মারহাবা! পুলিশ ভাইয়েরা মারহাবা!! কাঁচা ধান কেটে দিয়ে ‘ধান দায় গ্রস্থ’ কৃষককে উদ্ধার করেছো মারহাবা!!!”

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে তিনি পোষ্ট করেছেন “একটি মাগনা পরামর্শ” মানণীয় প্রধানমন্ত্রী এবার সুস্থ না থাকায় ইচ্ছে থাকা সত্বেও ধান কাটতে পারেননি। কিন্তু আগামীতে উনি যে উনার ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটাবেন তাতে কোন সন্দেহ নেই। আর মানণীয় প্রধানমন্ত্রী যদি ধানকাটে তাহলে কি আপনারা তা চেয়ে চেয়ে দেখবেন নাকি উনার সাথে ধান কাটবেন? আমার ধারনা অনেকেরই ধানকাটার বাস্তব অভিজ্ঞতা নাই বা থাকলে ও ভুলে গেছেন। তাই যদি হয় তাহলে দেশের সকল মন্ত্রী, এমপি, সচিব, ডিসি, ইউএনও, পুলিশ, বিজিবি, সেনাবাহিনীসহ সকল সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের হাতেকলমে ধানকাটার একটি সংক্ষিপ্ত কোর্স সম্পন্ন করে রাখা সেইসাথে একখানা জুতসই কাস্তে নিজের কাছে সংগ্রহ করে রাখা খুবই জরুরী বলে মনে করছি। এতে করে ধান কাটতে না পারার বিব্রত অবস্থা থেকে আপনারা রক্ষা পাবেন আর জাতি হিসেবে আমরা বিশেষ করে কৃষককূল ধন্য হবো।’’

আনিসুর রহমান অপর একটি পোষ্টের মাধ্যমে বলেছেন… কৃষক ভাইয়েরা ধান নয় কচুর চাষ করুন। (অতিরিক্ত ফলনের জন্য) দাম না পেলে অন্ততঃ কচু গাছে ফাঁস নিয়ে মরতে পারবেন।

আনিসুর রহমান এর আইডি ফলো করে দেখা যায় তিনি একজন সক্রিয় জামাত কর্মী। ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে উস্কানী দেয়া এবং জনমনে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য তিনি এবং তার ঘনিষ্ঠ অনুচররা যেন সবসময় মুখিয়ে থাকেন।

ফেসবুকের মাধ্যমে দেখা যায় তার ফ্রেন্ডলিস্টে থাকা প্রায় সবাই তার অনুসারী। ভদ্রতার মুখোশ পরে রীতিমতো বিভ্রান্ত করে যাচ্ছে এরা সবাইকে। ফটোশপের ছোঁয়ায় পাকা ধান ক্ষেত কে এরা কাঁচা ধান ক্ষেত হিসেবে দেখিয়ে জনমনে রীতিমতো মিথ্যা সংবাদকে সত্যতায় রুপান্তরের চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন।

কৃষকের সমস্যার সমাধান এভাবে কি আদৌ সম্ভব? কেউ কেউ আছেন তাদের সংগঠনের স্বার্থ রক্ষার পাঁয়তারা নিয়ে ব্যস্ত আর কেউ কেউ ফেসবুকে কি করে ছবি পোষ্ট করে ভাইরাল হবেন সেই চিন্তায় বিভোর। কৃষকের ধান কিন্তু কৃষককেই কাটতে হচ্ছে। ধানের দাম বাড়ালে আবার চালের দাম-ও বাড়বে। বিপাকে সেই কৃষককুল। আসলে কি ধানের দাম বাড়ানো প্রয়োজন নাকি ধান উৎপাদনের খরচ কমানো প্রয়োজন!

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840