সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন

প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন

টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন
টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন

কানাডা প্রবাসী মুজাহিদুল ইসলাম শিপন দীর্ঘদিন পর গত মার্চ মাসের শুরুতে দেশে এসে করোনা ভাইরাসের কারনে আটকা পড়েন। রীতিমতো স্তব্ধ হয়ে যান প্রকৃতির বিরুপ আবহাওয়ার সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকা বাংলার সাধারণ মানুষদের জীবনমান দেখে। তৎক্ষনাত তিনি কর্মহীন মানুষদের পাশে দাঁড়ান। তবে তার কাজের ধরণ অন্য আট দশ জনের মতো নয় একেবারেই ব্যতিক্রম উদ্যোমে। রাতের আধারে মানুষের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দেন এই সাবেক ছাত্রলীগ নেতা।

মুজাহিদুল ইসলাম শিপন একসময় টাঙ্গাইল উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। রাজনৈতিক প্রতিভাধর শিপন ছাত্র জীবনে সরকারি এম এম আলী কলেজে পড়ালেখা করার সময় ছিলেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন সভাপতি।

বিত্তশালী পরিবারের সন্তান মুজাহিদুল ইসলাম শিপন। পরিবারের সকল সদস্যই কানাডা চলে যাওয়ায় তিনিও একসময় কানাডায় পারি জমান। সুদূর প্রবাসে থেকে তার ছাত্রনেতা বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেন এবং বন্ধুদের মাধ্যমে দীর্ঘ ২১ বছর যাবত গরিব-দু:খী-মেহনতি মানুষের উপকার করে যাচ্ছেন। বন্ধুদের সুপারিশের মাধ্যমে যখন যেভাবে প্রয়োজন তিনি মানুষের জন্য বিভিন্নভাবে সহয়োগিতা প্রদান করে যাচ্ছেন।

কিছুদিন আগে তিনি পুনরায় কানাডা চলে যান কিন্তু সুদূর কানাডা চলে গেলেও তার মন পরে থাকে বাংলাদেশে। যে কোন সময়, যে কোন সুযোগে গরীব ও মেহনতী মানুষের পাশে দাঁড়াতে বদ্ধ পরিকর মুজাহিদুল ইসলাম শিপন।

আজ জাতীয় শোক দিবস। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আজ প্রবাসে থেকে তিনি তার টাঙ্গাইলের নিজ বাড়িতে দোয়া মাহফিল ও গণভোজের আয়োজন করেন। তার বিশাল আয়োজনে ছিল না বাড়তি কোন প্রচার প্রকাশ। ছিল না কোন অতিথী কিংবা কোন রাজনৈতিক নেতাকে দাওয়াত করে খাওয়ানোর কোন রুপ ইচ্ছা বা প্রচেষ্টা।

করোনার পাশাপাশি বন্যা মানুষের জীবনমান নিম্নসীমায় নামিয়ে দিয়েছে। এমতাবস্থায় তার আয়োজন ছিল সাধারণ নিম্ন আয়ের মানুষদের রাস্তা থেকে ডেকে এনে খাওয়ানো। স্ব-পরিবারে মুজাহিদুল ইসলাম শিপন কানাডায় থাকার কারনে যাবতীয় দায়িত্ব তার বন্ধুদের উপর ন্যাস্ত করেন। তার বন্ধুরা তার হয়ে সুন্দরভাবে অর্পিত দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তার পরিবারের সদস্যদের মধ্যে তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী দেশে অবস্থান করছেন। তিনি নিজ হাতে গরিব দু:খিদের মাঝে খাবার বিতরণ করেন।

মুজাহিদুল ইসলাম শিপন
গরিব দু:খিদের জন্য খাবার রান্না করা হচ্ছে

মুজাহিদুল ইসলাম শিপন এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন “দেশ ও দেশের মানুষের প্রতি তার অনেক দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। তিনি খুব শীঘ্রই দেশে ফিরবেন। টাঙ্গাইলে আগে ভাল কাজ করার মতো সুস্থ্য পরিবেশ না থাকলেও বর্তমানে খুব সুন্দর পরিবেশ বিরাজমান। যেখানে যেকোন ব্যক্তি নির্ভয়ে মানুষের জন্য কাজ করতে পারেন। “

তিনি সামাজিক বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে অংশ নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। তিনি জনবান্ধব বিভিন্ন কর্মসূচী এবং বিভিন্ন সংগঠনে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে ইচ্ছা পোষণ করেন।

এছাড়াও মুজাহিদুল ইসলাম শিপন বলেন “উপযুক্ত যায়গায় যদি নিজেকে যোগ্যভাবে উপস্থাপন করতে পারি তাহলে আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব আমার নিজের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে করার চেষ্টা করবো।”

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840