সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
ফেসবুকে গাছ খ্যাকো ডাইনি খ্যাত মহিলা ও তার সন্ত্রাসী ছেলে গ্রেফতার

ফেসবুকে গাছ খ্যাকো ডাইনি খ্যাত মহিলা ও তার সন্ত্রাসী ছেলে গ্রেফতার

গাছকাটা মহিলা গ্রেফতার
গাছকাটা মহিলা গ্রেফতার

গাছ কাটার দায়ে মহিলাটিকে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়েছে। গতকাল ফেসবুক লাইভ ভিডিওতে সুমাইয়া হাবিব নামের একটি সরল মেয়ে গাছ কাটার ভয়াল দৃশ্য সবার সামনে তুলে ধরে।  ফলশ্রুতিতে সারাদেশ জুড়ে নিন্দার ঝড় বয়ে যায়।

ভয়ানক মহিলার আগ্রাসী চেহারা, দা হাতে মেয়েটাকে কোপ দিতে এগিয়ে আসার মত ভয়ানক কান্ড ফেসবুকের মাধ্যমে প্রায় ৫ কোটি লোক দেখেছে এ পর্যন্ত। গাছের মালিক পরিবার অসহায় হয়ে তাকিয়ে দেখছে। চরম নির্মমতা।

ফেসবুকে গাছ খেকো ডাইনি খ্যাত ওই মহিলার স্বামি স্বামীর পেশায় অ্যাডভোকেট। নাম অ্যাড. সেলিম আলদীন। আইনের রক্ষাকর্তার স্ত্রীর এমন রূপ সবার সামনে কাল উঠে আসে। মাগরিবের আজানের সময় হিজাব পরিহীত অবস্থায় এই মহিলা সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে এই বর্বরতা চালায়।

সন্ত্রাসী ছেলে লিখন

ঘটনার সূত্রপাত তার সন্ত্রাসী ছেলেকে নিয়ে। সে তার বন্ধুদের নিয়ে ছাদ বাগানের গাছ গুলোর ক্ষতি করে এবং মাঝে মাঝে ডাল ভেঙ্গে দেয়। এতে করে সুমাইয়া হাবিব বারবার তাকে অনুরোধ করে পরিশ্রম করে লাগানো গাছগুলোকে এভাবে ভেঙ্গে না ফেলতে । সন্ত্রাসী ও বখাটে লিখন এতে ক্ষিপ্ত হয়। মেয়েটাকে হুমকিও দেয়। উঠিয়ে নিয়ে ক্ষতি করবে। বাসার বাইরে বের হতে পারবে না।

মেয়েটা ও তার পরিবার ওই বিল্ডিং এর বাকি সব পরিবারকে বিষয়টা জানায় এতে আর-ও ক্ষিপ্ত হয় লিখন।

গোপনে রাতের আঁধারে ছাদে গিয়ে লিখন আবার-ও ডাল ভাঙ্গলে মেয়েটা বলেন “যে ডাল ভাঙ্গছে আল্লাহ যেন তার বিচার করেন। তার হাত যেন অবশ হয়ে যায়।”

এই অভিশাপের কারনে লিখনের মা আক্রমণাত্মক হয়ে উঠেন। তার স্বামি ওকিল হওয়ায় তিনি জানেন আইন তাকে কিছুই করতে পারবে না। তিনি বলেন “আমি গাছ সব কাটছি। তোরেও কাইটা ফালামু। তুই যা করাবর পারস কর।”

গুন্ডা ও মাদকসেবী আব্দুল্লাহ আলদীন লিখন ১০/১২ জন মাস্তান নিয়ে মাকে প্রোটেকশন দেন এবং খুব আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে ছিলেন কারা। যাতে মেয়েটা গাছ কাটাতে বাধা না দিতে পারে। গাছ কাটতে বাঁধা দিতে এলে মেয়েটার সাথে খুব খারাপ কিছু করতে হবে এমন প্ল্যান ছিল লিখন ও তার মায়ের। যাতে সে সমাজে আর মুখ দেখাতে না পারে।

লাইভ ভিডিও প্রচারিত হতে দেখেও তারা গাছ কেটে ফেলা বন্ধ করেনি।

মেয়েটা ফেসবুক স্ট্যাটাসে বলেন “কখনো কি শুনছেন মানুষ গাছ অপছন্দ করে? গাছ পরিবেশ নষ্ট করে? এই মহিলার গাছ পছন্দ না। তার বক্তব্য আমাদের গাছ ছাদের পরিবেশ নষ্ট করে ফেলছে। তাই এই মহিলা আমাদের সব গাছ কেটে ফেলছে। কি অপরাধ ছিল গাছের? কি অপরাধ ছিল? কেউ বলতে পারবেন?

আমার মা গাছ অনেক পছন্দ করে, তাই ছাদের এক কোণায় আমরা কিছু গাছ লাগাইছিলাম, আর এই মহিলা আমাদের সাথে শত্রুতা করে আমাদের লাগানো গাছগুলা কেটে ফেললো। এই বিল্ডিং এ আমরা ২ টা ফ্লাট কিনেছি। সবাই যার যার ক্রয়কৃত ফ্লাটে থাকে। ছাদে সবারই অধিকার আছে।

আমরা আমাদের অধিকার থেকে কিছু গাছ লাগিয়েছি ছাদের একটা কোণায় কারণ আমরা ভাবতেও পারি নি গাছ মানুষ অপছন্দ করতে পারে। গাছ তো সৌন্দর্য বাড়ায়। আর তারা বলে আসছে আমাদের গাছ নাকি ছাদের পরিবেশ নষ্ট করে দিছে। তারা অকারণে অন্যায়ভাবে আমাদের জীবন্ত এবং ফল ধরন্ত গাছগুলি কেটে ফেললো।

আবার তার ছেলে কিছু ১০/১২ জন মাস্তান নিয়ে আসছে আমাদের উপর হামলা করার জন্য। আমাদের একটাই অপরাধ আমরা গাছ ভালবাসি। তাই শখ করে গাছ লাগিয়েছিলাম। আমরা তো অন্যের জায়গায় গাছ লাগাই নাই।

আমরা আমাদের অধিকার থেকে গাছ লাগাইছিলাম। আমার মা এই গাছগুলিরে নিজের সন্তানের মত যত্ন করে। আমরা গাছগুলোকে নিজের সন্তানের মত ভালবাসতাম। মানুষ কিভাবে এতটা নিচে নামতে পারে? গাছ তো তাদের কোনো ক্ষতি করে নাই। পুরা ছাদই তো ফাঁকা।

এই মাগরিবের আযানের সময়, ওনার মাথায় সুন্নতি হিজাব কিভাবে পারলো এই জীবন্ত গাছগুলি কেটে ফেলতে।

এর হয়তো কোনো বিচার হবে না। তবে আল্লাহর কাছে বিচার দিলাম। আল্লাহই বিচার করবে।”

অ্যাডভোকেট সাহেবের কুকীর্তি ফাঁস হবার ভয়ে আছে সন্ত্রাসী লিখন এর পরিবার।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840