সংবাদ শিরোনাম:
বিবস্ত্র করে নির্যাতন: চার বিশিষ্টজনের প্রতিক্রিয়া মিন্নি সর্বশেষ সংবাদ টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন
বিবস্ত্র করে নির্যাতন: চার বিশিষ্টজনের প্রতিক্রিয়া

বিবস্ত্র করে নির্যাতন: চার বিশিষ্টজনের প্রতিক্রিয়া

নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন
নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন

নারী নির্যাতন রোধে সরব হোন, সোচ্চার হোন

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে (৩৭) বিবস্ত্র করে নির্যাতন ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়ানোর ঘটনায় চরম উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন চার বিশিষ্টজন। তাঁরা হলেন, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জেড আই খান পান্না, মানবাধিকার কর্মী শিরীন হক, অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ ও আইনজীবী সালমা আলী। তাঁরা ভবিষ্যতে এমন ঘটনা রোধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে সমাজের প্রতিটি স্তর থেকে এ ঘটনার প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তাঁরা নারী নির্যাতনের ঘটনায় শাস্তির বিষয়গুলোও ব্যাপকভাবে প্রচারের ওপর জোর দেন।

সবার দায়িত্ব হচ্ছে চুপ করে না থাকা

আনু মুহাম্মদ
আনু মুহাম্মদ

আনু মুহাম্মদ
অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

সমাজের মধ্যে অসহিষ্ণুতা রয়েছে। কোনো কিছু বিচার করা, বিবেচনাবোধ, সংবেদনশীলতা ও দায়িত্ববোধের অভাব রয়েছে। নারীর প্রতি কর্তৃত্ববাদী দৃষ্টিভঙ্গিও সমাজে খুব শক্তিশালীভাবে আছে। নারী নির্যাতনকে তারা অধিকার মনে করে এবং কৃতকর্মের জন্য কোনো অপরাধবোধও করে না। ক্ষমতা থাকলে তার কিছু হবে না—এই ভাবনা এখন সামাজিক রোগে পরিণত হয়েছে। সামাজিক ও রাজনৈতিক পর্যায়ে অসততা ও দায়িত্বহীনতা চরম মাত্রায় রয়েছে। সামগ্রিকভাবে মানুষের প্রতি রাষ্ট্রের যে দায়িত্ব, তা রাষ্ট্র স্বীকার করে না। রাষ্ট্র খুন, ধর্ষণ, ভীতি প্রদর্শনের বিষয়গুলো সমাধান না করে যাঁরা এসব ঘটনায় প্রতিবাদ করেন, তাঁদের বিরুদ্ধে উল্টো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার ব্যবস্থা নেয়। এই নারীর নিপীড়নের মুখোমুখি হওয়ার ঘটনায় সবার দায়িত্ব হচ্ছে চুপ করে না থাকা। এই অবস্থাকে যাঁরা স্বাভাবিক বলে মনে করবেন না, তাঁদের এখন প্রতিবাদ হিসেবে সম্মিলিতভাবে সরব হতে হবে, সমষ্টিগতভাবে সোচ্চার হতে হবে।

কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নিয়ে উদাহরণ তৈরির সুযোগ রয়েছে

জেড আই খান পান্না
জেড আই খান পান্না

জেড আই খান পান্না
জ্যেষ্ঠ আইনজীবী, সুপ্রিম কোর্ট

এটি একটি জঘন্য ঘটনা। অমানবিক, অসভ্য ও বর্বরতার চরম। নিন্দা জানানোর ভাষা খুঁজে পাই না। ভাইরাল হওয়ার কারণে ঘটনা ঘটার ৩২ দিন পর তা জানা গেল। ওই এলাকার পুলিশেরও দায়িত্ব রয়েছে সেই এলাকায় কী ধরনের বিশৃঙ্খলা বা আইন লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে, তা নজরে রাখা। ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা রোধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার নজির স্থাপন করতে হবে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এই ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দ্রুত বিচার আদালতে বিচার করা উচিত। সাধারণ আদালতেও যে দ্রুত বিচার সম্ভব—ফেনীর নুসরাত হত্যা মামলাই এর উদাহরণ। দ্রুত বিচার হলে, কঠোর শাস্তি হলে অপরাধপ্রবণ মানুষের সামনে উদাহরণ তৈরি হবে। অপরাধীরা অপরাধ করতে ভয় পাবে। এই নারীর ঘটনায় কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নিয়ে এখনো এমন উদাহরণ তৈরির সুযোগ রয়েছে।

কর্তৃপক্ষ যেন কানে তালা লাগিয়ে বসে আছে

শিরীন হক
শিরীন হক

শিরীন হক
সদস্য, নারীপক্ষ

নারী নির্যাতন রোধে, নারীর অধিকার আদায়ে ৩৫ বছর ধরে লড়াই করছি। আজ এ ঘটনা দেখে মনে হলো, এত দিন ধরে তবে কী করলাম! আজ সকালে ঘটনাটি জানার পর অসুস্থ বোধ করছি। অসভ্যতার চরম যদি কিছু হয়ে থাকে, এ ঘটনাটি সেটাই। নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে হাজারো প্রতিবাদ, হাজারো বিক্ষোভ হলো, তা–ও যেন কিছুতেই কিছু হচ্ছে না। নানাভাবে নানা মাত্রায় নারী নিপীড়নের শিকার হচ্ছে, অপদস্থ হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ যেন কানে তালা লাগিয়ে বসে আছে। বিচারপ্রক্রিয়া নিয়েও মানুষের এখন আস্থা নেই। এসব ঘটনা বন্ধে সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত হওয়া জরুরি। নারী নির্যাতন প্রাত্যহিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারও কন্যাসন্তান আজ নিরাপদ নয়। কোনো একটি ঘটনা ভাইরাল হওয়ার পর আমরা যেভাবে সোচ্চার হচ্ছি, বছরজুড়ে সবাইকে প্রতিটি নির্যাতনের ঘটনায় এভাবে সোচ্চার-সরব থাকতে হবে। নারী ইস্যু মানে শুধু নারীরা নয়, পুরুষদেরও সোচ্চার হতে হবে।

সরকারকে শূন্য সহিষ্ণুতা দেখাতে হবে

সালমা আলী
সালমা আলী

সালমা আলী
সভাপতি, বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি

এ ঘটনায় আমি মর্মাহত, ক্ষুব্ধ। নৈতিকতা তবে কোথায়! পারিবারিক বন্ধন না থাকা ও সুস্থ, সংস্কৃতিমনা পরিবেশ না পেয়ে কিছু মানুষ বর্বর হয়ে উঠছে। এসব মানুষের অপরাধবোধ নেই বললেই চলে। ঘটনাটি ভাইরাল হয়েছে বলে অনেকে জানতে পেরেছেন। দৃশ্যমান হওয়ায় সাক্ষ্য তৈরি হয়েছে। কিন্তু প্রতিদিন নারী নির্যাতন, নিপীড়ন, ধর্ষণের এমন বহু ঘটনা ঘটছে, যা কেউ জানতে পারছেন না। সেসব ঘটনায় মামলাও হচ্ছে না, ধামাচাপা পড়ে যায়। বিচারহীনতার কারণে এসব ঘটনা ঘটানোর সাহস পায় কিছু মানুষ। এ কারণে নির্যাতনের প্রতিটি ঘটনায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করে তা প্রচার ও প্রকাশ করতে হবে ব্যাপকভাবে। যাতে অপরাধপ্রবণ মানুষ শাস্তির ভয়ে অপরাধ করা থেকে দূরে থাকে। এসব ঘটনা রোধে সরকারকে শূন্য সহিষ্ণুতা দেখাতে হবে। আর সমাজকেও তার দায়িত্ব পালন করতে হবে। নারীর জন্য যা চরম অবমাননাকর, তা রোধে প্রতিবাদের মাধ্যমে এগিয়ে আসতে হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840