সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
মালেশিয়ার মত উন্নত রাষ্ট্রের বিখ্যাত ইউনিভার্সিটির ভিপি বাংলাদেশি যুবক

মালেশিয়ার মত উন্নত রাষ্ট্রের বিখ্যাত ইউনিভার্সিটির ভিপি বাংলাদেশি যুবক

মালেশিয়ার মত উন্নত রাষ্ট্রের বিখ্যাত ইউনিভার্সিটির ভিপি বাংলাদেশি যুবক
মালেশিয়ার মত উন্নত রাষ্ট্রের বিখ্যাত ইউনিভার্সিটির ভিপি বাংলাদেশি যুবক

সুন্নতি পোশাক পড়েও মালেশিয়ার মত উন্নত রাষ্ট্রের বিখ্যাত ইউনিভার্সিটির ভিপি হতে পারে তা প্রমাণ করলেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্বের সাবেক স্কুল বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মদ বশির ইবনে জাফর। তিনি যখন নির্বাচনি প্রচারণা চালান তখন নাকি তার সুন্নাতি পোশাক তাঁকে অন্যদের চেয়ে আলাদা দেখাচ্ছিল। আর ভিন্নতা তাকে বিজয় এনে দিয়েছে বলেও তাঁর বিশ্বাস।

ইসলামকে বুকে ধারণ করেও যে নশ্বর পৃথিবীতে বিজয় অর্জন সম্ভব তা এই ইশা ছাত্র আন্দোলনের নেতাই প্রমাণ করে দিয়েছে। ইশা ছাত্র আন্দোলন এমন একটি সংগঠন যাতে সংসহিতামূলক রাজনৈতিক কর্মকান্ড নেই। শান্তিপ্রিয় এই ছাত্র রাজনৈতিক সংগঠন ত্রিধারার ছাত্রদের নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। দেশের প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তাদের দৃশ্যমান কাজ চলছে। বিগত ডাকসু নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে তারা সাড়া জাগিয়েছে সর্বত্র। দুই যুগ পর প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তারা আল্লাহু আকবরের ধ্বনিতে ক্যাম্পাস মুখরিত করে তুলেছে।

ডাকসুতে জুব্বা পাগড়ি পরিহিত ছাত্রদের ডাকসু নির্বাচনের প্রচারণা ছিল শতাব্দির সেরা দৃশ্য। এমন দৃশ্য ঢাবির ছাত্ররা পূর্বে কখনো দেখেনি কিন্তু ভোট ডাকাতির নির্বাচনে জয়ী হতে পারেনি ইশা ছাত্র আন্দোলনের কোন প্রার্থী। যদি সৃষ্ঠু নির্বাচন হত তাহলে অনেক প্রার্থীই জয়ী হত তা সহজে বলা যায়। টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া রূপসা থেকে পাথুরিয়া ইশা ছাত্র আন্দোলন আজ ছাত্র জনতার অধিকার আদায়ে কাজ করছে।

১৯৯১ সালে প্রতিষ্টিত এই ছাত্র সংগঠন ইতোমধ্যে সুনাম কুড়াতে সক্ষম হয়েছে।চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, ছিনতাই, রাহাজানি, হল দখল, সস্ত্রাসি কর্মকান্ডে তাদের কোন সম্পৃক্তার প্রমাণ মিলেনি। স্বাধীনতার যুদ্ধের ঘোষণা পত্রে উল্লেখিত সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় নীতির পরিবর্তন চাই শ্লোগানে দেশব্যাপি সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে। তারা ছাত্রদের হাতে অস্ত্রের পরিবর্তে কলম তুলে দিতে চাই । যারা কলম খাতাে পরিবর্তে ছাত্র সমাজের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে তারা ছাত্র সমাজের শত্রু তা নয়, তারা ইসলাম, দেশ, মানবতা ও স্বাধীনতার শত্রু।

বাংলাদেশে বহু ছাত্র সংগঠন রয়েছে। তার মধ্যে শান্তিপূর্ণ কাফেলার নাম ইশা ছাত্র আন্দোলন। প্রতিটি নেতা কর্মী দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষার কথা ভাবে।প্রত্যেক নেতা কর্মী হৃদয়ে দেশ প্রেম লালন করেই রাজনীতি করে। তাদের মাতৃসংগঠন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রত্যেক নেতা তাদের দেশপ্রেমের দীক্ষা দেন।

দেশ মাতৃকার টানে নিজেদের জীবন উৎসর্গেও বদ্ধপরিকর। ইশা ছাত্র আন্দোলনের কর্মীরা নিজেরা পরিবর্তন হয়না বরং পরিবর্তন ঘটায়। কালের স্রোত ও সংস্কৃতি স্রোতে তারা ভেসে যায় না। তারা চলে স্রোতের বিপরীতে। তাইতো মালেশিয়ার মত উন্নত দেশের বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হয়েও ভুলে যায়নি ইসলামী সংস্কুতিকে। গর্বের সাথে প্রকাশ করেছে আমি মুসলিস তাই রাসূল (সা) এর সুস্নাতি পোশাকই আমার পোশাক।

গত বছর চীনে এক ইউনিভার্সিটিতে বিভিন্ন দেশের ছাত্রদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক প্রদর্শনী অনুষ্ঠান হয়েছিল। সে অনুষ্ঠানে ইশা ছাত্র আন্দোলনের এক কর্মী বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছিল মাথায় পাগড়ি আর গায়ে জু্ব্বা পাঁয়জামা পরে।সুদূর চীনে গিয়েও ইশা ছাত্র আন্দোলনের কর্মীরা রাসূল (সা) এর সুমহান আদর্শকে জলাঞ্জলী দেয়নি।

সুতরাং এ কথা স্পৃৃৃৃষ্টই বলা যায় যে ইশা ছাত্র আন্দোলনের নেতা কর্মীরা অন্যদের পরিবর্তন করে কিন্তু নিজেরা পরিবর্তন হয়না। তারা পরিবর্তন ঘটায় সমাজের।কালের স্রোত আর আধুনিকতার নির্লজ্জতা তাদের স্পর্শ করতে পারেনা। আর এটাই ইশা ছাত্র আন্দোলনের স্বার্থকতা।

দেশের প্রতিটি কলেজ ইউনিভার্সিটিতে তাদের বিচরণ চোখে পড়ার মত। সুন্নাতি পোশাক পরিহিত কাউকে দেখলে চোখ বন্ধ করে বুঝে নিতে পারেন ছাত্রটা ইশা ছাত্র আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত। আমি অনেক কওমী মাদরাসার ছাত্রদের দেখেছি যারা ভার্সিটিতে ভর্তি হলে সুন্নাতি পোশাক উধাও হয়ে যায় কিন্তু যারা ইশা ছাত্র আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত তারা জেনারেল ছাত্র হোক আর মাদরাসার ছাত্র হোক তার পরনে সুন্নাতি পোশাক থাকবেই। ন্যায় নীতি আর আদর্শিক দৃঢ়তার কারণে ইশা ছাত্র আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বময়।

লেখকঃ নুর আহমদ সিদ্দিকী

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840