সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
মিথিলা যা বললেন ভাইরাল ছবি ও ভিডিও নিয়ে

মিথিলা যা বললেন ভাইরাল ছবি ও ভিডিও নিয়ে

মিথিলা ফাহমি তাহসান জন
মিথিলা ফাহমি তাহসান জন

মিথিলা-ফাহমির ভাইরাল ছবি নিয়ে তাদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছেন বাংলাদেশের সকল প্রথম সারির মিডিয়া। মিথিলার পক্ষে সাফাই গাইছেন অভিনেত্রি ভাবনা ও প্রভা। অবশেষে সফল হয়েছেন ৭১ এর সংবাদ প্রতিনিধি।

নির্মাতা ও পরিচালক ইফতেখার আহমেদ ফাহমির সঙ্গে অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গতকাল থেকে ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে চলছে নানা তর্ক-বিতর্ক। বিষয়টি নিয়ে আমরা কথা বলেছি নায়িকা, মডেল, গায়িকা ও সমাজকর্মী মিথিলার সাথে।

সময় টিভি গতরাতেই মিথিলার সাথে যোগাযোগ করলে সে ফোন রিসিভ করে বলেন, ‘এটা অস্বাভাবিক কোনো ছবি না।’ এই কথা বলেই ফোনের লাইন ডিসকানেক্ট করে দেন তিনি। পরবর্তীতে বিভিন্ন মিডিয়া যোগাযোগ করলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এসব বিষয়ে নিউজে ছেয়ে গেছে।

সোমবার ‘টেক বিনোদন’ নামে ফেসবুক গ্রুপে ইফতেখার আহমেদ ফাহমির সঙ্গে অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলার অন্তরঙ্গ কয়েকটি ছবি পোস্ট করা হয়। ছবিগুলো ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। ৮ মিনিট ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যা মিথিলা-ফাহমির বলে ফেসবুকে দাবী উঠেছে।

মিথিলার পক্ষ নিয়ে একজন মিডিয়াকর্মী বলেন “এসব নিতান্তই ব্যক্তিগত বিষয়। আমিও একজন মানুষ। আমার-ও ব্যক্তিগত চাহিদা আছে। জৈবিক চাহিদা আছে। মিথিলা একজন নারী। তার-ও সেসব চাহিদা থাকা অস্বাভাবিক নয়। ব্যক্তিগত ছবি ফেসবুকে কীভাবে আসলো আমরা জানি না। তবে যেই এটা ফেসবুকে ছড়িয়ে থাকুক কাজটা ভাল করেনি। মিথিলা চাইলে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করতে পারে।”

মিথিলা বলেন “সৃজিতকে নিয়েও এর আগে তোলপার হয়েছে। জনকে নিয়ে তো কত গল্পই হলো। ফাহমি নি:সন্দেহে আমার খুব কাছের একজন বন্ধু। আমাদের মাঝে এমন কিছু নেই যা ভাইরাল হবার মত। বেশ কিছু এডিটেড ছবি ফেসবুকে আমার শত্রুপক্ষ ছড়িয়েছে। যে যার মত ভাবুক, আমার তা ভাববার সময় নেই। আমি আমার মত।”

ভিডিও প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন “আমি ফেসবুকের মাধ্যমে বিভিন্ন এডিটেড ছবি দেখেছি কোন ভিডিও দেখিনি। যদি কেউ কোন ভিডিও আমার নামে ছড়িয়ে থাকে তবে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নিবো। আমার ওরকম কোন ভিডিও নেই। আমি কখনো এমন কিছু ফাহমির সাথে করার কথা কল্পনাও করিনি সুতরাং আমি ছেড়ে কথা বলবো না। কিছুদিন আগে মেহজাবিনকে নিয়েও একটি বাজে ভিডিও আপলোড হয়েছিল। আসলে কিন্তু সেটা মেহজাবিনের নয়। আমাকে যারা ছোট করতে চাচ্ছেন তাদের সাথে আমার কিসের শত্রুতা তা আমার ঠিক জানা নেই।”

একে একে তিন জনের সাথে ঘণিষ্ঠ ছবি সম্পর্কে বলেন “তিনজনেই আমার ভাল বন্ধু। আমাদের সাথে আর-ও ক্লোজ ছবি থাকতে পারে। যারা এসব নিয়ে ঘুম হারাম করেছেন তাদের লাভ সম্পর্কে আমার আসলে জানা নেই। আমি আধুনিক একটি মেয়ে। আমি মিডিয়া আর সমাজকর্মীও বটে।”

এরকম সম্পর্কের জেরেই কি তাহসান এর সাথে বিচ্ছেদ? তিনি বলেন “মিডিয়াতে বলবো একনকম আর তারা আরেকরকম মিন করবে। দেশে তো বুদ্ধিজীবীতে ছেয়ে গেছে। আমরা দুজনে নিজেদের মধ্যে বোঝাপরা না হওয়ায় পৃথক হয়েছি। কখনো কেউ কাউকে ব্লেইম দেইনি। আমি নিজেও দেইনি।তাহসানকেও দিতে দেখিনি। মানুষ যা ইচ্ছা ভাবতে পারে। আমরা আমাদের সন্তানের বিষয়ে কথা বলি। দেখা করি। বাচ্চাকে সময় দেই। সুতরায় আমার এই বিষয়ে কথা বলার আর কোন আগ্রহ নেই।”

অনেক অনুরোধ করেও আর কোন কথা মিথিলার থেকে শুনা সম্ভব হয়নি। মিথিলার ভিডিওটি অনেকে এডিট করা বললেও বেশিরভাগ নগ্ন ছবি-ই সত্যিকারের বলেছেন অনেকে। কোন কোন মিডিয়া কর্মী বলেছেন কেউ আইডি হ্যাক করে এসব তথ্য লুফে নিয়েছেন। তারপর ভাইরাল করেছেন। পক্ষে বিপক্ষে চলছে কানাঘুষা।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840