সংবাদ শিরোনাম:
টাঙ্গাইলে একইসাথে দুই করোনা যোদ্ধার জন্মদিন উদযাপন এমপি মমতা হেনা লাভলীর টাঙ্গাইলে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, টাঙ্গাইল জেলা শাখার নতুন কমিটি এমপি হিরোর বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর অপচেষ্টার অভিযোগ টাঙ্গাইলে ছাত্রলীগ কর্তৃক বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানিক শিকদারের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে জাতীয় শোক দিবস পালন টাঙ্গাইলের পৌর মেয়র জামিলুর রহমানে মিরনের ব্যবস্থাপনায় টাঙ্গাইলে শোক দিবস পালন প্রবাসে থেকেও থেমে নেই টাঙ্গাইলের মুজাহিদুল ইসলাম শিপন মেয়র লোকমানের আত্মস্বীকৃত খুনি এমপি সাহেবের প্রোগ্রামে সক্রিয় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নিজেই প্রধান অতিথী, সভাপতিত্ব করবেন কে?
মোদির সফর ঠেকাতে সারাদেশে আজ গণমিছিল অনুষ্ঠিত

মোদির সফর ঠেকাতে সারাদেশে আজ গণমিছিল অনুষ্ঠিত

মোদির সেফর ঠেকাতে
মোদির সেফর ঠেকাতে

মোদির সফর ঠেকাতে ওলামায়ে মাশায়েখদের ১২ মার্চ মানববন্ধন
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে ওলামায়ে মাশায়েখরা। তীব্র ক্ষোভে ফেঁটে পরছে বাংলাদেশের অধিকাংশ জনগণ।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ প্রত্যাহার করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ওলামা–মাশায়েখরা। তাঁরা বলেছেন, যেকোনো মূল্যে তাঁরা মোদির ঢাকা সফর প্রতিহত করবেন। এ জন্য মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হলে এর দায়দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।
ওলামাগণ তাদের অবস্থান বারবার স্পষ্ট করে বলেছেন তারা ভারতের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন। ভারত আমাদের বন্ধু প্রতিম রাষ্ট্র। আমাদের স্বাধীনতায় তাদের অবদানও অস্বীকার করছি না। তবে মোদি একজন সন্ত্রাসী। তিনি মুসলাম বিরোধী এবং হত্যাকারী। সবসময় ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং তার মন্ত্রী পরিষদের বেশ কিছু সদস্য মুসলিমদের বিরুদ্ধে উসকানি মূলক বিভিন্ন বক্তব্য দিয়ে থাকেন। তার জের ধরেই দিল্লিতে মুসলমানদের উপর নারকীয় নির্যাতন চলছে। ভারতের বিভিন্ন এলাকায় নরেন্দ্র মোদির কারনেই গরু জবাই নিষিদ্ধ। মুসলমানরা গরুর গোশত খেতে চাইলে বা গরু জবাই করলে তাদের প্রকাশ্যে হত্যা করা হয়।

হাজার বছরের মসজিদ ভেঙ্গে সেখানে মন্দির নির্মাণ এর মতো স্পর্ধা দেখাচ্ছেন এই মোদি সরকার। বাংলাদেশে কলঙ্কিত হবে, মোদি আসলে। এমনটাই মন্তব্য আপামর জনগণের।
আজ শুক্রবার জুমার নামাজের পর বায়তুল মোকাররমের উত্তর প্রাঙ্গণ থেকে হাজারো মুসল্লি ‘দিল্লিতে মুসলিম গণহত্যার প্রতিবাদে এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফর প্রতিবাদে’ বিক্ষোভ মিছিল করেন। পরে সমাবেশে ওলামা–মাশায়েখরা এসব কথা বলেন।
বিজয় নগরের হোটেল ৭১ এর সামনে এক সমাবেশে মোদির ঢাকা সফরের প্রতিবাদে আগামী ১২ মার্চ বৃহস্পতিবার রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে মানববন্ধন কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়। ঢাকায় আসর নামাজের পর এ মানববন্ধন রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে গাবতলী, সদরঘাট থেকে টঙ্গী পর্যন্ত হবে।
‘দিল্লিতে মুসলিম গণহত্যার প্রতিবাদ’ এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফর প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেন মুসল্লিরা।মিছিলে সববয়সী মানুষের ভীর পরিলক্ষিত হয়। তবে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা কোথাও ঘটেনি।
সমমনা ইসলামি দলগুলোর ব্যানারে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা নূর হোসাইন কাশেমী বলেন, ‘মোদিকে বাংলার জমিনে আসতে দেওয়া হবে না। যেকোনো মূল্যে তার আগমন প্রতিহত করা হবে।’ তিনি ১২ মার্চের মানববন্ধনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েটের ছাত্র ও তৌহিদী জনতাকে অংশগ্রহণের আহ্বান জানান। ওই দিন পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। সকলেই সহমতের ভিত্তিতে মোদির আগমন ঠেকাতে তীব্র আন্দোলনের মুখে বাংলাদেশ।
সমাবেশে বক্তব্য দেন খেলাফত আন্দোলনের আমির আতাউল্লাহ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশের মহাসচিব মাহফুজুল হক, খেলাফত মজলিশের মহাসচিব আহমদ আবদুল কাদের, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সহসভাপতি আবদুর রব ইউসুফী, মাওলানা মামুনুল হক, মুসলিম লীগের কাজী আবুল খায়ের, খেলাফতে আন্দোলনের মুজিবুর রহমান হামিদী ছাড়াও আরও অনেকে।
শুধু ঢাকাতে নয় বগুড়া, চট্টগ্রাম, খুলনা, সিলেট সহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আজ মোদি বিরোধী মিছিল দেয়া যায়। সারাদেশের মানুষের বিভিন্ন ক্ষোভ ফুটে উঠে তাতে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Comments are closed.




© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।
নির্মান ও ডিজাইন: সুশান্ত কুমার মোবাইল: 01748962840